রাজধানীতে কচ্ছপ বিক্রির অপরাধে ৩ জনকে ৯ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড

বিপন্ন প্রজাতির কচ্ছপ বিক্রির অপরাধে রাজধানীর শাখারী বাজারে ৩ জনকে ৯ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- দীপক নন্দী (৫৫), পনির চন্দ্র দাস (৪০) ও ময়না রানী দাস।

আজ শুক্রবার সকালে শাঁখারিবাজারে অভিযান চালিয়ে র‌্যাবের-১০ এর সদস্যরা ওই তিন বিক্রেতাকে আটক করে। পরে তাদের র‌্যাব-১০ এ বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের সহযোগিতায় পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন র‌্যাব সদর দফতরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলম।

সারওয়ার আলম বলেন, বিপন্ন প্রজাতির কচ্ছপ ধরে শাঁখারীবাজারে বিক্রি করার সময় ওই তিনজনকে আটক করা হয়। এ সময় ৬ মণ বিপন্ন প্রজাতির কচ্ছপ উদ্ধার করা হয়। এসব কচ্ছপ দেশের বিভিন্ন জাতীয় উদ্যানে অবমুক্ত করা হবে।

“জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, একটি চক্রের মাধ্যমে নরসিংদী এবং মুন্সীগঞ্জ এলাকা থেকে কচ্ছপ শিকার করে শাঁখারীবাজার এলাকায় বিক্রি করছিল তারা। এর মধ্যে পনির চন্দ্র দাসকে এর আগেও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। সে চার মাস কারাবাস করে জামিনে বের হয়ে আসে। আবার একই অপরাধে জড়ায়।”

র‌্যাব-১০ এ বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিদর্শক অসীম কুমার মল্লিক জানান, পনির চন্দ্র নামে আটক ব্যক্তিকে ইতোপূর্বে একই ব্যবসায় জড়িত থাকায় ৬ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছিলেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। ৪ মাস জেল খেটে পুনরায় কচ্ছপ ব্যবসায় জড়িয়ে যায়।

র‌্যাব-১০ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন ফারুকী জানান, আসামিরা দীর্ঘদিন ধরে বিলুপ্তপ্রায় ও বিক্রয় নিষিদ্ধ কচ্ছপ শিকার ও বিক্রি করে আসছিল। জব্দকৃত কচ্ছপগুলো জাতীয় উদ্যানে উন্মুক্ত স্থানে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।