‘শিক্ষকের হাতে বন্দুক থাকলে যে কোনো হামলা ঠেকাতে পারবে’

শিক্ষকদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে স্কুলে ঢুকে গুলি চালিয়ে হত্যার ঘটনা বন্ধের প্রস্তাব সামনে এনেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফ্লোরিডার এক স্কুলে গুলির ঘটনায় ১৭ জন নিহত হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে যখন অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের দাবি আরও জোরালো হয়ে উঠেছে, তখনই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের এমন প্রস্তাব এল। 

তিনি বলেছেন, শিক্ষকের হাতে বন্দুক থাকলে খুব দ্রুতই তিনি যে কোনো হামলা ঠেকিয়ে দিতে পারবেন। অস্ত্রের ক্রেতাদের অতীত ইতিহাস আরও ভালোভাবে খতিয়ে দেখার যে দাবি উঠেছে, তার প্রতিও সমর্থন জানিয়েছেন ট্রাম্প।

বুধবার হোয়াইট হাউজে মার্জরি স্টোনম্যান ডগলাস হাই স্কুলের এক দল শিক্ষার্থীকে সাক্ষাৎ দিয়ে তিনি বলেন, “আমরা খুব কঠোরভাবে ব্যাকগ্রাউন্ড পরীক্ষা করে দেখব। মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর অনেক বেশি গুরুত্ব দেব।”

ফ্লোরিডার ওই হাই স্কুলেই গত ১৪ ফেব্রুয়ারি গুলির ঘটনা ঘটে। ছুটির আগে আগে ১৯ বছর বয়সী এক তরুণ একটি অ্যাসল্ট রাইফেল নিয়ে স্কুলে ঢুকে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়।  নিহত ১৭ জনের মধ্যে ১৪ জনই ছিল বিভিন্ন বয়সের শিক্ষার্থী।

ট্রাম্প বলেন, হামলাকারীরা হল কাপুরুষ। স্কুল যেহেতু অস্ত্রমুক্ত এলাকা, এটা তাদের উৎসাহিত করে। তারা মনে করে, ভেতরে যেহেতু কারো হাতে অস্ত্র নেই, ঢুকে গুলি করে দিলেই হয়।

“কিন্তু একজন শিক্ষকের কাছে যদি লুকানো একটি অস্ত্র থাকে, তাকে যদি প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়, তাহলে ওই অস্ত্রমুক্ত এলাকাটা আর থাকবে না।”

বিবিসি লিখেছে, যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি রাজ্যে কলেজ ক্যাম্পাসে অস্ত্র বহনের বৈধতা থাকলেও ফ্লোরিডার আইনে সে সুযোগ নেই।