প্যারাডাইস পেপারসে নাম আসা ২০ জনের তথ্য সংগ্রহ শুরু দুদকের

প্যারাডাইস পেপারসে নতুন করে নাম আসা বিশ জন বাংলাদেশির বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।

অল্প করের বিনিময়ে অর্থ রাখার সুযোগ করে দেয়া দেশগুলোর মধ্যে দক্ষিণ ইউরোপের দ্বীপ রাষ্ট্র মাল্টা অন্যতম। সম্প্রতি ফাঁস হওয়া প্যারাডাইস পেপারস এর নথি বলছে, বিভিন্ন দেশের রাঘববোয়ালদের পাশাপাশি আলোচিত ব্যবসায়ী মূসা বিন শমসেরসহ বিশজন বাংলাদেশি দেশটিতে অফশোর কোম্পানি খুলেছেন। এর আগে, পানামা, প্যারাডাইস, অফশোর লিকস মিলে এখন পর্যন্ত এ তালিকায় এসেছে ৮৯ বাংলাদেশির নাম।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সংগঠন আইসিআইজে -এর সর্বশেষ তালিকায় মূসা ছাড়াও ফজলে এলাহী চৌধুরী, কে এইচ আসাদুল ইসলাম, জুলফিকার আহমেদ, তাজুল ইসলাম, মোহাম্মদ মালেকসহ বিশ বাংলাদেশির ঠিকানাসহ প্রকাশ করা হয়েছে। ঠিকানা অনুযায়ী এখন এসব বাংলাদেশিদের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহ করছে দুর্নীতি দমন কমিশন দুদক।

এসব ব্যাক্তির ওপর বাড়ানো হয়েছে নজরদারিও।

দুদক বলছে, দেশ থেকে অবৈধভাবে বিদেশে অর্থ পাঠানোর প্রমাণ পাওয়া মাত্রই আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে; বলে জানান দুদক’র সচিব ড. শামসুল আরেফিন। অবশ্য এর আগে পানামা, অফশোর ও প্যারাডাইস পেপারসে যাদের নাম এসেছিলো তাদের বিষয়ে অনুসন্ধান খুব বেশি না এগুনোর কারণ ব্যাখ্যা করেছেন সংস্থাটি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ মনে করেন, অর্থপাচারে তদন্তকারী সংস্থাগুলোর মধ্যে রয়েছে সমন্বয়ের অভাব। কার্যকর কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় অর্থপাচার বাড়ছে বলে