দুর্নীতির ধারণা সূচকে দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টার-ন্যাশনালের (টিআই) দুর্নীতির ধারণা সূচকে দুই ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। গত বছর ১৮৬টি দেশের মধ্যে অবস্থান ছিল ১৫তম। এবার ২ ধাপ উন্নতি করেছে। যার মানে দাঁড়ালো বাংলাদেশে এক বছরের ব্যবধানে দুর্নীতি কমেছে আট ধাপ। জার্মানি ভিত্তিক দুর্নীতি বিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) দুর্নীতির ধারণাসূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১৭তম।

আজ বৃহস্পতিবার জার্মানির বার্লিন থেকে সারাবিশ্বে একযোগে প্রকাশিত টিআই-এর ২০১৮ সালের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আজ সকালে রাজধানীর ধানমন্ডির মাইডাস সেন্টারে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বার্লিন থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন তুলে ধরা হয়েছে।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের মতোই সমান স্কোর পেয়েছে আরও পাঁচটি দেশ। এগুলো হলো ক্যামেরুন, গাম্বিয়া, কেনিয়া, মাদারগাস্কা ও নিকারাগুয়া। সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্থ দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান এবার ১৭। গত বছর যা ছিল ১৫। ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বিশ্বের ১২টি খ্যাতনামা গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জরিপ থেকে পৃথকভাবে তথ্য সংগ্রহ করে তা বিশ্লেষণ ও সমন্বয়ের মাধ্যমে দুর্নীতির ধারণাসূচক প্রতিবেদন তৈরি করে। কিছু জরিপের তথ্য সাধারণভাবে সব দেশের জন্য ব্যবহৃত হলেও বিভিন্ন দেশের ক্ষেত্রে সবচেয়ে প্রযোজ্য জরিপটি বেছে নেওয়া হয়।

দুর্নীতির ধারণাসূচক অনুযায়ী এবার বিশ্বের সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ সোমালিয়া। অন্যদিকে সবচেয়ে কম দুর্নীতির দেশ নিউজিল্যান্ড। টিআই এর ২০১৭ এ প্রকাশিত দুর্নীতির ধারণা সূচক (করাপশান পারসেপশন ইনডেক্স বা সিপিআই) ২০১৬ অনুযায়ী সূচকের ০-১০০ এর স্কেলে বাংলাদেশে স্কোর ১৭। ২০১৭ সালের তালিকায় নিম্নক্রম অনুযায়ী ১৭৬ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫তম। আগের চেয়ে দুই ধাপ উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশের। এ বছর ঊর্ধ্বক্রম অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান ১৪৫তম।