দৌলতপুরে স্বামীকে গলা কেটে হত্যা, স্ত্রী আটক

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার মথুরাপুর ইউপির শালিমপুর এলাকায় দ্বিতীয় স্ত্রী তার স্বামীকে গলা কেটে হত্যা করেছে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। পুলিশ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা ছুরি হাতুড়ীসহ দ্বিতীয় স্ত্রী মারুফা খাতুন (৩০) কে আটক করেছে।

থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, উপজেলার খলিশাকুন্ডি এলাকার ওয়ারেশ আলীর ছেলে কুদরত আলী (৪৫) দুই স্ত্রী নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে মথুরাপুর ইউপির শালিমপুর এলাকায় বসবাস করে আসছিল। পারিবারিক বিরোধের জের ধরে তার ছোট স্ত্রী শনিবার মধ্যরাতে কুদরত আলীকে নিজের ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় ছুরি দিয়ে জবাই করে হত্যা করে পার্শ্ববর্তী ডাকবাংলোর পিছনে আম বাগানে ফেলে রাখে। খবর পেয়ে রবিবার সকাল ১০ টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।স্থানীয়রা জানিয়েছে, দ্বিতীয় স্ত্রী মারুফা খাতুনের সাথে কিছু মানুষের অবৈধ মেলামেশাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।

দৌলতপুর থানার ওসি শাহ দারা খান জানান, নিহতের ঘর থেকে রক্তমাখা ছুরি ও হাতুড়ী পাওয়া গেছে এবং ঐ ঘরে পড়ে থাকা রক্ত মুছে ফেলার নমুনা পাওয়া গেছে। ওসি আরো জানান, পারিবারিক কলহের কারণে এ হত্যাকান্ড ঘটে থাকতে পারে বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে।

জহুরুল হক, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি