ঢাকার লা গ্যালারিতে ‘ক্ষমতায়নের মুখগুলো’ শীর্ষক আলোকচিত্রী প্রদর্শনী

অলিয়ঁস ফ্রঁসেজ দো ঢাকার লা গ্যালারিতে ‘ডেনিশ ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি’-ডানিডার উদ্যোগে আয়োজিত “ক্ষমতায়নের মুখগুলো” শীর্ষক আলোকচিত্রী জিএমবি আকাশ এর একক আলোকচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। প্রদর্শনীর শুভ উদ্বোধন করা হবে মঙ্গলবার, ২০শে ফেব্রুয়ারী ২০১৮, বিকেল ৪.৩০ ঘটিকায় অলিয়ঁস ফ্রঁসেজ দো ঢাকায়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব আসাদুজ্জামান নূর, এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশে নিয়ুক্ত ডেনমাকের্র মাননীয় রাষ্ট্রদূত জনাব মিকেইল হেমনিতি উইনথার।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সম্মানিত অতিথি হিসাবে আরও উপস্থিত থাকবেন রাজশাহীর প্রত্যন্ত অঞ্চলের ২৯ বছরের রত্না। বছরের পর বছর রত্না তার স্বামী ও শ্বশুরালয়ের মানুষদের দ্বারা মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছিলেন। স্থানীয় সরকারি হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে তিনি পালিয়ে আসে আশ্রয় নেন। তার অত্যাচারী স্বামীকে বিচারের আওতায় আনা সম্ভব হয় সেই ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার-এর মাধ্যমে যা ডানিদা’র সহায়তায় চলছে। আজ নিজ গ্রামে রত্না একটি বিউটি পার্লার এর স্বত্বাধিকারী, তার সন্তানরাও স্কুলে শিক্ষাগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে।

বাংলাদেশের ডেনমার্ক দূতাবাসের সহযোগিতায় জিএমবি আকাশ কুড়িটি আলোকচিত্রে বন্দি করেছেন ‘জিএমবি আকাশ-এর “ক্ষমতায়নের মুখগুলো”। তারা বাংলাদেশের সবচেয়ে হতদরিদ্র আর নির্যাতিতদের প্রতিনিধিত্ব করে। এরা তাদের মধ্যে কয়েকজন, যারা সকলে ডেনিশ অর্থায়নে পরিচালিত গ্রামীণ বাংলাদেশ উন্নয়ন প্রকল্পগুলোয় নিবন্ধিত- যা কিনা ‘ডেনিশ ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি’ -ডানিডার অধিভুক্ত।

‘ক্ষমতায়নের মুখগুলো’ সেইসব চেহারাগুলো তুলে ধরে, আর গল্প বলে- জীবনের সবচেয়ে সংকটাপন্ন সময়ে টিকে থাকা সংগ্রামের গল্প। এ গল্পগুলো অবিচারের, নির্যাতনের, পরিবারের ভেঙে যাবার, কিন্তু একই সাে গল্পগুলো পরিত্রাণ পাবারও, আর্থনীতিক ক্ষমতায়নেরও, ঋজু বলিষ্ঠতারও।

এই প্রদর্শনী ডেনমার্ক এবং বাংলাদেশের মধ্যকার দীর্ঘদিনের উন্নয়ন অংশীদারিত্বের চিহ্ন বহন করে। সেই ১৯৭২ সালে থেকেই ডেনমার্ক বাংলাদেশকে প্রত্যন্ত অঞ্চলের দারিদ্র্য বিমোচনে এবং মৌলিক মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করে যাচ্ছে। প্রদর্শনীটি চলবে ২৬ শে ফেব্রুয়ারী ২০১৮ পর্যন্ত। সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা থেকে রাত ৯টা এবং শুক্রবার ও শনিবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১২টা এবং বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত প্রর্শনীটি খোলা থাকবে। রোববার সাপ্তাহিক বন্ধ। প্রদর্শনীটি সবার জন্য উন্মুক্ত।