বিএনপির অভিযোগে আওয়ামী লীগের প্রতিক্রিয়া

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শুক্রবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একটি অনুষ্ঠানে বলেছেন, এখানে খালেদা জিয়ার জন্য আমরা বিশাল জনতার সমাবেশ করতে পারবো না। কারাগার চলবে জেল কোড অনুযায়ী। কারাগার তো নির্জন জায়গা। বাইরে নানা ঝুট ঝামেলায় থাকেন, এটি একটু শান্তিতে, স্বস্তিতে থাকার একটা জায়গা। কারাগারে থাকার মধ্য দিয়ে তিনি একটু বিশ্রামের সুযোগ পেলেন। 

কাদের আরও বলেন, অন্ধকারে ঢিল ছোড়া বিএনপির পুরনো অভ্যাস। আদালতের আদেশের বাইরে খালেদা জিয়ার বিষয়ে কোনো হাত নেই সরকারের। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নতুন মামলা দেয়া বা তাকে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো এটা পুরপুরি আদালতের বিষয়, সরকারের নয়।

তিনি বলেন, কারাগারে ডিভিশন নিয়ে খালেদা জিয়ার থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এমনকি তার গৃহকর্মীকেও সঙ্গে রাখছেন তিনি কারাগারে। এমন সুযোগ বাংলাদেশে কেউ পান না। এ দৃশ্য দেশে নজিরবিহীন।

এদিকে শুক্রবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বিএনপির দেয়া অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। শুক্রবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা মিথ্যা বলছেন। ৬৩২ পৃষ্ঠার রায়ের কপি টাইপ করতে যুক্তিসংগত যতটুকু সময় লাগে ততটুকু সময়ই কপি পাবেন তারা। এর এক মিনিটও দেরি হবে না। এতে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না।

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আরও বলেন, খালেদা জিয়াকে আর কোনো মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়নি। কোনো মামলায় শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হবেও না। খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জামিনের জন্য জজকে জিম্মি করেছেন বলে তিনি মন্তব্য করেন।