ভয়ঙ্কর প্রাণীর সঙ্গে একই ঘরে বসবাস!

কখনো ভেবেছেন, আপনি যে ঘরে বসবাস করছেন এর পাশের ঘরে রয়েছে চিতাবাঘ, ভাল্লুকসহ আরও নানা ধরনের ভয়ঙ্কর প্রাণী। তখন কেমন লাগবে আপনার? নিশ্চয় ভয়ে ঘুমুতে পারবেন না ঠিকমত। কিন্তু প্রকাশ আমেতে নামের এক ভারতীয়র প্রধান নেশাই এটা।

যেসব বন্য পশুপাখির মা-বাবাকে শিকার করা বা হত্যা করা হয় সেসব পশু-পাখিকে উদ্ধার করে নিজের বাড়িতেই যত্ন সহকারে বড় করে তোলেন প্রকাশ। এসব পশু-পাখির মধ্যে রয়েছে চিতাবাঘ, ময়ূর, হেনা, ভাল্লুকসহ আরও অনেক বন্য প্রাণী। নিজের বাড়িতে এই অস্বাভাবিক চিড়িয়াখানা গড়ে তুলেছেন তিনি। মূলত মা-বাবাহারা বন্য পশু-পাখিদের অনাথাশ্রম এটি। বিবিসি অনলাইনে এক ভিডিও প্রতিবেদনে প্রকাশ আমেতের এই পশু-পাখির অনাথাশ্রমের বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে।

বিবিসিকে প্রকাশ জানান, এসব প্রাণী মূলত তাদের মায়ের কাছ থেকে বিভিন্ন শিক্ষা গ্রহণ করে। কীভাবে শিকার করতে হয়, নিজের যত্ন নিতে হয়। কিন্তু যেহেতু এসব বাচ্চা প্রাণীর মা নেই। তাই তাদের অনাথাশ্রমের দরকার হয়। সাধারণত বন্য পশুদের দেখাশোনা করা এবং তাদের সঙ্গে বাস করা বিপদজনক। তবে প্রকাশ বলেন, বাড়িতে থাকা প্রাণী তার জন্য বিপদজনক নয়।

তিনি আরও বলেন, ‘লেপার্ড-হায়েনারা নিষ্ঠুর প্রাণী’ এটা মানুষের ভুল ধারণা। আমি ৪৪ বছর ধরে তাদের সঙ্গে কাজ করছি এবং আমি অনুভব করি তাদের ভালোবাসার কারণেই আমি বেঁচে আছি। ১৯৯১ সালে এই আশ্রয় কেন্দ্রটি একটি উদ্ধার কেন্দ্র হিসেবে স্বীকৃত ছিল। এর লাইসেন্স গত নভেম্বরে শেষ হয়েছে। কিন্তু এখনো তা নবায়ন করা হয়নি।

ভারতের চিড়িয়াখানা কর্মকর্তারা বলছেন, বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইন অনুযায়ী তিনি বাড়িতে এসব প্রাণী রাখার অনুমতি পাবেন না। তবে তার এর অনাথাশ্রম চালু থাকবে এমন অনুমতির জন্য অপেক্ষা করছেন জানিয়ে প্রকাশ বলেন, আমি এলাকার লোকজনের সমর্থন পেয়েছি। এবং এসব প্রাণীর সাথে এভাবে থাকতে পেরে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি।

বিবিসির ওই ভিডিও প্রতিবেদনে দেখা যায়, প্রকাশ এসব প্রাণীর সঙ্গে খেলা করছেন। তাদের খাইয়ে দিচ্ছেন এবং আদর করছেন।