‘দেশে রাজনৈতিক সংকটের জন্য সরকারের একগুয়েমী নীতিই দায়ি’

দেশে রাজনৈতিক যে সংকট তৈরি হয়েছে, সেটির জন্য সরকারের একগুয়েমী নীতিই দায়ি বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ন্যাপ’র মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া।

তিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানিয়ে বলেন, অত্যাচার নির্যাতন নিপীড়ন করে কেউ কখনও ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারে না। ক্ষমতায় যেতে পারলেও কিন্তু ফল শুভকর হয়নি। অনুরোধ করবো ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়ে মানুষের মন বুঝার চেষ্টা করুন। অবিলম্বে খালেদা জিয়াসহ অন্য নেতাদের মুক্তি দিন। মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করুন। নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করুন যাতে সব দল নির্বাচনে অংশ নিতে পারে।

তিনি বলেন, সংকট চার দিক থেকেই হচ্ছে। রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশ ৫০ বছর পার করতে যাচ্ছে অল্প সময়ের মধ্যেই। অথচ দুঃখজনক হলেও সত্য যে, এই দীর্ঘ সময়ের মধ্যেও আমরা আমাদের মধ্যে জাতীয় ঐকমত্য সৃষ্টি করতে পারিনি। আমাদের শাসকগোষ্ঠী সব সময়ই নিজেদের ক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ী করতে গণতান্ত্রিক চেতনার বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করেছে। শুক্রবার নয়াপল্টনস্থ যাদু মিয়া মিলনায়তনে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ’র সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় মহান একুশের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও ভাষা শহীদ দিবস এবং বিডিআর ট্রাজেডি দিবস উপলক্ষে ৪ দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। ১৯ ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদ দিবস স্মরণে আলোচনা সভা, ২১ ফেব্রুয়ারি ভোরে প্রভাত ফেরি ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন, ২৩ ফেব্রুয়ারি বিডিআর ট্রাজেডি স্মরণে আলোচনা সভা ও ২৫ ফেব্রুয়ারি দোয়া অনুষ্ঠান।

ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া’র সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ শাহজাহান সাজু, স্বপন কুমার সাহা, মো. নুরুল আমান চৌধুরী, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য আহসান হাবিব খাজা, মো. কামাল ভুইয়া, মো. শহীদুননবী ডাবলু, মতিয়ারা চৌধুরী মিনু, আনছার রহমান শিকদার, নির্বাহী সদস্য এডভোকেট আবদুস সাত্তার, অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, অজিউল্লাহ অজু, এখলাছুল হক, যুব নেতা আবদুল্লাহ আল কাউছারী, ছাত্রনেতা সোয়মান সোহেল প্রমুখ।