বাংলায় নামফলক না লেখায় ডিএনসিসির অভিযান

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকার যেসব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও তৎসংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ব্যতীত) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি এখনও বাংলায় লেখা হয়নি সেগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করছে ডিএনসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বৃহস্পতিবার সংসদ ভবন সংলগ্ন আসাদগেট এলাকায় এ অভিযান শুরু হয়েছে। অভিযানটি পরিচালনা করছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অজিয়র রহমান। এর আগে গত ৭ ফেব্রুয়ারি গুলশান ২ নম্বরে এ অভিযান পরিচালিত হয়। এ বিষয়ে গত ২৮ জানুয়ারি ডিএনসিসির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে বলা হয়েছিল, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের এখতিয়ারাধীন এলাকার যেসব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও তৎসংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ব্যতীত) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা হয়নি তা অবিলম্বে স্ব-উদ্যোগে অপসারণ করে আগামী ৭ দিনের মধ্যে বাংলায় লিখে প্রতিস্থাপন করতে হবে। সে লক্ষ্যে জাতীয় দৈনিকে গণবিজ্ঞপ্তি এবং ডিএনসিসির ফেইসবুক পেইজে বিষয়টি জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার অভিযানের শুরুতে আসাদগেট এলাকার কালার ওয়ার্ল্ড ডিজিট এক্সপ্রেস (ডিজিটাল স্টুডিও), ওয়াল্টন শো রুম (জামান ইঞ্জিনিয়ারিং) প্রতিষ্ঠানগুলোর নামফলক বাংলার পরিবর্তে ইংরেজিতে থাকায় তা অপসারণ করা হয় পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানগুলোকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা। অভিযানে ব্র্যাক ব্যাংকের (আসাদগেট শাখা) একটি নামফলক অপসারণ করা হয় এবং বাকিগুলো নিজ উদ্যোগে সরিয়ে নিতে বলা হয়। এ অভিযান দিনব্যাপী চলবে।

এ বিষয়ে অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অজিয়র রহমান বলেন, আমাদের আওতাধীন সব এলাকায় মাইকিং করা ছাড়াও বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিষয়টি সম্পর্কে জানানো হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজকে অভিযান শুরু করেছি, দিনব্যাপী এ অভিযান চলবে। তিনি জানান, যেকোনো প্রতিষ্ঠানকে ট্রেড লাইসেন্স প্রদানের সময়ই তাদেরকে বাংলায় নামফলক, ব্যানার সাইনবোর্ড লেখার বিষয়ে অবহিত করা হয়।

ডিএনসিসির পক্ষ থেকে বলা হয়, হাইকোর্টের নির্দেশ (১৬৯৬/ ২০১৪ নং রিট পিটিশনে প্রদত্ত আদেশ) অনুযায়ী সব প্রতিষ্ঠানের (দূতাবাস, বিদেশি সংস্থা ও তৎসংশ্লিষ্ট ক্ষেত্র ব্যতীত) নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি বাংলায় লেখা বাধ্যতামূলক। কিন্তু লক্ষ করা যাচ্ছে যে, কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানের নামফলক, সাইনবোর্ড, বিলবোর্ড, ব্যানার ইত্যাদি ইংরেজি ও অন্যান্য বিদেশি ভাষায় লেখা হয়েছে। এমতাবস্থায় ডিএনসিসির এখতিয়ারাধীন এলাকার যাবতীয় প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।