প্রশ্ন ফাঁসে ব্যবহৃত ৩০০ মোবাইল নম্বর ‘ব্লকড’

চলমান এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঙ্গে জড়িত অভিযোগে ভিআইপিদের ব্যবহৃত নম্বরসহ ৩০০ মোবাইল ও টেলিফোন নম্বর শনাক্ত করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। প্রশ্ন ফাঁসে ব্যবহৃত এই ফোন নম্বর চিহ্নিত করে সেগুলো বন্ধ করে দিয়েছে সরকার।

এসব মোবাইল নম্বরের মালিকদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানেও নেমেছে। প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ সংক্রান্ত তথ্য যাচাই-বাছাই কমিটির প্রধান ও কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর এই তথ্য জানিয়েছেন।

গত বছর বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসের পর এবার এসএসসিতে শিক্ষামন্ত্রীর কড়া হুঁশিয়ারি ও ফাঁসকারীদের ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণার পরও প্রশ্ন ফাঁস হয়েই চলছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ তদন্তে একটি কমিটি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

জড়িতদের মধ্যে রয়েছে পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষক, পরীক্ষার্থী, অভিভাবক এবং মেডিকেল-প্রকৌশলসহ বিভিন্ন উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী। এই শিক্ষার্থীদের অনেকে প্রশ্নপত্র ফাঁস করতে তাদের ‘ভিআইপি’ বাবা-মায়ের মুঠোফোন নম্বর ব্যবহার করেছেন। শনাক্ত এসব নম্বর ধরে পুলিশ এখন গ্রেফতার অভিযানে নেমেছে। তবে প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে কর্তৃপক্ষের সব প্রচেষ্টাই যেন ব্যর্থ হচ্ছে।

রোববার সচিবালয়ে এই কমিটির প্রথম সভা শেষে সচিব আলমগীর সাংবাদিকদের বলেন, “এ পর্যন্ত ৩০০ টেলিফোন নম্বর চিহ্নিত করে ব্লক করে দেওয়া হয়েছে।”

এই নম্বরধারীদের অধিকাংশ শিক্ষার্থী জানিয়ে তিনি বলেন, “এরা মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে পড়ে, কম্পিউটার সায়েন্সে পড়ে। এদের অভিভাবকরাও আছে।”

চলতি এসএসসি ও সমমানের সবগুলো পরীক্ষার প্রশ্ন পরীক্ষা শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চলে আসায় পরীক্ষার শুরুতে ইন্টারনেটের গতি সীমিত করার সিদ্ধান্তও নিয়েছে সরকার।

শুরুতে অস্বীকার করলেও শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এখন বলছেন, পরীক্ষার কিছুক্ষণ আগে উদ্দেশ্যমূলকভবে শিক্ষকরা প্রশ্ন ফাঁস করে দিচ্ছেন। চলতি এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে কি না- কমিটি তা পর্যালোচনা করছে বলে  জানান আলমগীর।