দেশ ও রাজনীতির উন্নয়ন নিয়ে ডেইলি মেইল ২৪ এ আজ কথা বলবেন আদম তমিজি হক

তিনি দেশের স্বনামধন্য হক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচলাক। স্বাধীনতা অব্যবহিত পরে ১৯৭৬ সালে জন্ম নেয়া নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন বাবার মতোই একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে। সৎ, নির্লোভ বহুমাত্রিক কৃতিত্বের অধিকারী একজন আলোকিত মানুষ, যিনি সারা জীবন অসহায় মানুষ ও সমাজের জন্য নীরবে-নিভৃতে কাজ করে চলেছেন। সমাজকে আলোকিত করার এক মহাকর্মযজ্ঞে তিনি ব্যস্ত রয়েছেন সারাটি জীবন। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী এ সাদা মনের আলোকিত মানুষটির নাম আদম তমিজি হক। দেশ ও রাজনীতির উন্নয়ন নিয়ে ডেইলি মেইল ২৪ এ আজ রাত ৯:৩০ মিনিটে সরাসরি কথা বলবেন আদম তমিজি হক।

আসন্ন ঢাকা উত্তরে মেয়র পদে নির্বাচন নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনাকল্পনা। নির্বাচনকে সামনে রেখে আলোচনায় সরগরম হয়ে উঠেছে পাড়া-মহল্লার চায়ের দোকান থেকে শুরু করে শহরের অলিগলি সর্বত্র। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে ছুটছেন জনগণের কাছে। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার আশায় কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতারা মাঠে-ঘাট চষে বেড়াচ্ছেন বিপুল উদ্দীপনায়।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে নিজেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বলে প্রচারণা করেন হক গ্রুপের স্বত্বাধিকারী আদম তমিজি হক। ব্যবসায়িক ও জনসেবামূলক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি ইচ্ছা আছে নিজেকে মূলধারা রাজনীতিতেও প্রতিষ্ঠিত করতে। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে জনসেবায় কাজ করতে চান। বর্তমানে বাংলাদেশের রাজনীতির প্রতি দেশের মানুষের এক ধরনের নেতিবাচক ধারণা বিদ্যমান। তবে এই সব নেতিবাচক ধারণা একমাত্র তরুণ ও আদর্শবান রাজনীতিবিদরাই দূর করতে পারেন বলেই তার বিশ্বাস।

২০১০ সালে বাবার কাছ থেকে হক গ্রুপের দায়িত্ব বুঝে নেয়ার পর প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তির পরিমাণ বাড়িয়েছেন ২৫ গুণ। নিজের মেধা, দক্ষতা ও উৎসর্গের মাধ্যমে নিজের প্রতিষ্ঠানকে নিয়ে যেতে চান অনন্য এক উচ্চতায়। আদম তমিজি হকের সঙ্গে তার পারিবারিক, ব্যবসায়িক ও সামগ্রিক বিষয় নিয়ে সম্প্রতি কথা হয় তার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান হক সেন্টারে।

মাত্র ৯ বছর বয়সের পাড়ি জমান লন্ডনে। সেখানেই তিনি তার লেখাপড়া শেষ করেন। চাইলে সেখানেই স্থায়ী হতে পারতেন। দীর্ঘ সময় প্রবাসে কাটালেও মাতৃভূমির প্রতি টান বিন্দুমাত্র কমেনি তমিজি হকের। দেশের প্রতি ভালবাসার টানে ফিরে আসেন দেশে। বাবার কাছ থেকে বুঝে কেন হক গ্রুপের দায়িত্ব। হক গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে প্রতিষ্ঠানটিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন নিজের মতো করে।

ব্যবসা-বাণিজ্যের পাশাপাশি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে নিজেকে আলোকিত করার প্রয়াস আদম তমিজি হকের। নিজেকে নিবেদিত করেছেন সাধারণ মানুষের সেবায়। বিভিন্ন সামাজিক এবং উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে বরাবরাই অবদান রেখে চলেছেন। দেশে বন্যার্তদের সহায়তায় এগিয়ে গেছেন। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ভাণ্ডারে অবদান রেখেছেন নিজেদের সাধ্যমত। আবার সাম্প্রতিক সৃষ্ট রোহিঙ্গা সমস্যায়ও দেখা গেছে তার উদার অংশগ্রহণ। নিজের প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে ত্রাণ নিয়ে এগিয়ে গেছেন দুঃস্থ রোহিঙ্গাদের সেবায়।

ব্যবসায়ী হিসেবে দক্ষ আদম তমিজি হকের জনসেবায়ও সুনাম রয়েছে। টঙ্গী, গাজীপুরের বেশ কয়েকটি মসজিদের উন্নয়নসহ আঞ্জুমান হেদায়াতুল উম্মত এতিমখানার তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। শীতার্ত মানুষের জন্য প্রতিবছর কম্বল বিতরণ করে আসছেন। কক্সবাজারের হিমছড়িতে তমিজুল হক কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছেন তিনি।

তবে রাজনীতিতে আসলে নিজের জন্য নয়, বরং জনগণের জন্যই কাজ করবেন বলে জানালেন আদম তমিজি হক। যদিও বাংলাদেশের রাজনীতির সবকিছুই তার কাছে ভাল লাগে না। এর মধ্যে সবচেয়ে লজ্জাজনক ব্যাপার হলো জাতির জনকের শাহাদাৎ দিবস ১৫ই আগস্টে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া জাকজমকপূর্ণ ভাবে জন্মদিন পালন করে থাকেন। এটি জাতি হিসেবে আমাদের জন্য সত্যিই লজ্জার। এগুলো আমাদের দেশের ও দেশের বাইরের মানুষের কাছেও বিব্রতকর।