বিশৃঙ্খলা এড়াতে রাজপথে জাতীয় পার্টি

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার রায় ঘোষণায় ৫ বছরের কারাদণ্ড দণ্ডিত হলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এবং মামলায় জড়িত তারেক জিয়া সহ দলের অন্ন সদ্যসদ্যের ১০ বছরের সাজা ঘোষণা করেছেন আদালত। 

বেগম খালেদা জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে নিজ নির্বাচনী এলাকায় যে কোনো ধরণের বিশৃঙ্খলা এড়াতে ভোর থেকেই ঢাকা-৪ আসনের এমপি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার নেতৃত্বে রাজপথে অবস্থান নেন শ্যামপুর কদমতলি থানার জাতীয় পার্টির নেতারা।

বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা থেকেই ঢাকা-৪ নির্বাচনী এলাকার দোলাইরপাড়, পোস্তগোলা ও শ্যামপুর ট্রাক স্ট্যান্ডের বিপরীতে মূল সড়কের পাশে জাতীয় পার্টির শত শত নেতাকর্মী অবস্থান নেয়। সকাল ৮টার দিকে জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি এসে পোস্তগোলা টাওয়ারের সামনে অবস্থান নেন।

এ সময় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা স্লোগান দিয়ে পুরো এলাকা মুখরিত করে। পরে এমপি বাবলার নেতৃত্বে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মী একযোগে দিনব্যাপী কয়েক দফা পোস্তগোলা থেকে দোলাইরপাড় ও দোলাইর পাড় থেকে শ্যামপুর ট্রাক স্ট্যান্ড পযর্ন্ত পায়ে হেঁটে মহড়া দেয়।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বাবলা বলেন, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে এরশাদ সারাদেশে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন। তার অংশ হিসেবে ওই দিন থেকে আমার নির্বাচনী এলাকায় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। আজও সকাল থেকেই আমরা বিভিন্ন এলাকায় লাঙ্গলের পক্ষে গণসংযোগ করেছি। যেহেতু একটি রায়কে কেন্দ্র করে আজ ডিএমপির পক্ষ থেকে মিছিল মিটিংয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তাই মিছিল না করেই গণসংযোগ করছি।

উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা সাংবাদিক সুজন দে, শেখ মাসুক রহমান, শ্যামপুর থানার সভাপতি কাওসার আহমেদ, কদমতলি থানার সভাপতি শামসুজ্জামান কাজল, শাহনাজ পারভীন, সুলতানা আহমেদ লিপি, জহিরুল ইসলাম সরকার, জহিরুল ইসলাম জহির, মোতালেব হোসেন, শাহ ইমরান রিপন।