রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের নজর কেড়েছেঃ সুইজারল্যান্ড

রোহিঙ্গাদের স্থায়ী প্রত্যাবর্তনে সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশের পাশে থাকবে আশ্বাস দিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্ট অ্যালেন বেরসে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ বিশ্ববাসীর নজর কেড়েছে, যা প্রশংসনীয়। বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বুধবার রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে সাক্ষাৎ করে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় রোহিঙ্গা ইস্যু, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়ন, নারী ক্ষমতায়ন, দারিদ্র্য বিমোচন এবং সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীসহ দ্বিপাক্ষিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন তারা।

শিরীন শারমিন বলেন, রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ে সীমান্ত খুলে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবতার নবদিগন্তের সূচনা করেছেন। জাতিসংঘে তার প্রস্তাবিত পাঁচ দফার আলোকেই রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানের প্রক্রিয়া চলমান। তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ প্রত্যাবর্তন ও পুনর্বাসনে মিয়ানমারকে এগিয়ে আসতে হবে। এ সময় তিনি রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক জনমত তৈরি ও মানবতা লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে সুইজারল্যান্ড সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন। কক্সবাজারের কুতুপালংয়ে রোহিঙ্গাদের মানবেতর জীবন-যাপন সরেজমিনে পরিদর্শন করায় তিনি সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্টকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

বাংলাদেশের জনগণকে অতিথিপরায়ণ ও আন্তরিক উল্লেখ করে অ্যালেন বেরসে বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ অনুকরণীয় এবং অর্থনৈতিক বিভিন্ন সূচকে ও দারিদ্র্য বিমোচনে এদেশের অগ্রগতি লক্ষ্যণীয়। এছাড়া ১৩৬তম আইপিইউ (ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন) এবং ৬৩তম সিপিসি (কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি কনফারেন্স) সম্মেলন সফলভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ তার সক্ষমতা প্রমাণ করেছে। উভয় সম্মেলন কৃতিত্বের সঙ্গে নেতৃত্ব দেয়ায় তিনি স্পিকারেরর ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ সময়ে তিনি দুই দেশের সংসদ সদস্যদের সফর বিনিময়ের মাধ্যমে বিদ্যমান সম্পর্ক আরো জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সাক্ষৎকালে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের প্রধান হুইপ আ স ম ফিরোজ এমপি, সিনিয়র সচিব ড. আব্দুর রব হাওলাদার, সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত রেনে হোলেস্টাইন ও সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।