ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ট্রেনের সংঘর্ষ, ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে খাদে ট্রাক

বঙ্গবন্ধু সেতু রেল সংযোগ সড়ক ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার ধেরুয়া নামক স্থানে রেললাইনের উপর বিকল হওয়া একটি ট্রাক ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে খাদে পড়ে গেছে। বুধবার ভোর সোয়া ৪টার দিকে মির্জাপুর উপজেলায় ধেরুয়া রেল ক্রসিংয়ে ঢাকাগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেসের সাথে ট্রাকের এই দুর্ঘটনায় উত্তরবঙ্গের সঙ্গে সারাদেশের রেলযোগ দুই ঘণ্টার বেশি সময় বন্ধ থাকে। এতে মহাসড়কের উভয় পাশে কমপক্ষে ৫৬ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

প্রায় তিন ঘণ্টা পর বিকল হওয়া ট্রেন সরিয়ে নেয়া হলে রেল ও যানবাহন চলাচল শুরু হয়। এতে যাত্রীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। দুর্ঘটনার পর ধেরুয়া রেল ক্রসিং এলাকায় কর্তব্যরত দুই গেটম্যান পলাতক রয়েছে বলে জানা গেছে।

জয়দেবপুরের স্টেশন মাস্টার মো.শাহজাহান মিয়া জানান, টাঙ্গাইল-মির্জাপুর বাইপাস সড়কের ওই রেল ক্রসিং পার হওয়ার সময় একটি ট্রাক বিকল হয়ে যায়। ওই সময় রাজশাহী থেকে আসা ধূমকেতু এক্সপ্রেস ওই লাইন দিয়ে ঢাকার দিকে যাচ্ছিল।সংঘর্ষ হলে ট্রাকটি ছিটকে দুড়ড়ে মুচড়ে যায়। আর ট্রেনের ইঞ্জিনও অচল হয়ে পড়ে।

ট্রাকের আরোহীরা আগেই নেমে পড়ায় প্রাণহানি এড়ানো গেলেও সংঘর্ষের ফলে ধূমকেতুর ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। আর লাইন আটকে থাকায় উত্তরবঙ্গের সঙ্গে সারাদেশের ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

স্টেশন মাস্টার শাহজাহান জানান, সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সুন্দরবন এক্সপ্রেসের ইঞ্জিন লাগিয়ে ধূমকেতু ট্রেনটিকে মির্জাপুরে নেওয়া হয়। এরপর আবার ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি খলিলুর রহমান জানান, দুর্ঘটনার পর ভোর ৬টা পর্যন্ত ঢকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। ট্রেন ও ট্রাক সরিয়ে নেওয়ার পর স্বাভাবিক যান চলাচল শুরু হয়।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, মঙ্গলবার রাতে রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা ধুমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটি রাত ৩টা ৩৩ মিনিটে মির্জাপুর স্টেশন অতিক্রম করে। মির্জাপুর স্টেশনে কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টার গ্রেড-৪ নাজমুল হুদা বকুল ধেরুয়া রেল ক্রসিংয়ে কর্তব্যরত গেটম্যান এনামুল ও আব্দুল আলীমের সঙ্গে যোগাযোগ করে গোপন কোড নম্বরের মাধ্যমে সবুজ সংকেত পেয়ে ট্রেনটি ছেড়ে দেন।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু সেতু সংযোগ রেল সড়কেও ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে ভোর ৫টায় মির্জাপুর স্টেশনে আটকা পড়ে নীল সাগর এক্সেপ্রেস ও সকাল সাড়ে ৭টায় মহেড়া স্টেশনে আটকা পড়ে একতা এক্সপ্রেস। সকাল ৬টা ৩৫ মিনিটে নীলফামারীর চিলাহাটী থেকে নীল সাগর উদ্ধার ট্রেন এসে বিকল হওয়া ট্রেনটি উদ্ধার করে মির্জাপুর স্টেশনে নিয়ে আসে। পরে সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে ঢাকা থেকে লাইট ইঞ্জিন এনে বিকল হওয়া ট্রেনটি ঢাকায় নিয়ে গেলে সকাল ৮টায় নীল সাগর ও ৯টায় একতা এক্সপ্রেস ট্রেন দুটি ঢাকার উদ্দ্যেশে মির্জাপুর স্টেশন থেকে ছেড়ে যায়।

মির্জাপুর রেল স্টেশনের মাস্টার নাজমুল হুদা বকুল জানান, ধেরুয়া এলাকায় গোপন নম্বরের মাধ্যমে সবুজ সংকেত পেয়ে ট্রেনটি ছাড়া হয়। রেল সড়কের ওপর বিকল হওয়া ট্রাক থাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। ট্রাক বিকল হওয়ার খবর সময়মত জানতে পারলে দুর্ঘটনা রোধ করা যেত বলে তিনি উল্লেখ করেন।