‘আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি আদালতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে’

আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রায় পক্ষে না গেলে বিএনপি আইন মানে না, আদালত মানে না, আইনের শাসন মানে না। আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এখন আদালতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। বুধবার দুপুরে পাবনা পুলিশ লাইন মাঠে জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

সমাবেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনে দেশের জনগণ আগেও সাড়া দেয়নি। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আন্দোলন হলে, সেটাও মানুষ মানবে না। তাদের আন্দোলনের মরা গাঙে এখন আর জোয়ার আসে না। বিএনপির আন্দোলন এখন খালেদা জিয়ার ভ্যানিটি ব্যাগের ভেতর। ৯ বছর ধরে শুধু আন্দোলনের ভাঙা রেকর্ড বাজাচ্ছে। এসব কারনে বিএনপির ধানের শীষ এখন মানুষের কাছে পেটের বিষ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে আওয়ামীলীগের টার্গেট ১৮ বছরের তরুণ ভোটার ও নারী ভোটার। তাদের দলের সদস্য করতে হবে। জয়ের জন্য তারাই হবে প্রধান হাতিয়ার। বাংলাদেশ নেতা উৎপাদনের কারখানা। শেখ হাসিনার দরকার কর্মী সৃষ্টির কারখানা। চিহ্নিত মাদকাসক্ত, মাদক ব্যবসায়ী, চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আওয়ামীলীগের সদস্য হতে পারবে না। আসন্ন সংসদ নির্বাচনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, দলের বিরুদ্ধে কেউ বিদ্রোহ করলে তাকে আজীবনের জন্য বহিস্কার করা হবে।

সমাবেশে মন্ত্রী পাবনা-ঢাকা মহাসড়ককে আগামীতে চার লেনে রুপান্তরিত করার ঘোষণা দেন। একইসাথে আগামী বর্ষা মৌসুমের আগেই পাবনার সকল ভাঙা সড়ক মেরামত করতে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশ দেন। এছাড়া আগামী জুনের মধ্যে সারা পাবনায় শতভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে বলেও জানান তিনি।

জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর সভাপতিত্বে এবং পাবনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্সের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও পাবনা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, পাবনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সিনিয়র সহ সভাপতি রেজাউল রহিম লাল, পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আজিজুর রহমান আরজু, পাবনা-৩ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেন।