জালিয়াতির দায়ে বড়সড় আইনি জটিলতায় জড়াতে পারেন কিং খান!

দিনকয়েক আগে শাহরুখ খানের আলিবাগের বিলাসবহুল ফার্মহাউজ বাজেয়াপ্ত করেছে দেশের আয়কর বিভাগ। শোনা যাচ্ছে চাষের জন্য কেনা জমিতে বেআইনিভাবে ফার্মহাউজ বানানো হয়েছে। আরও জানা যায়, শাহরুখের এই বাংলোটি কোনওভাবেই কোস্টাল রেগুলেশন জোনের নিয়ম মেনে বানানো হয়নি।

এবার এই বেনামি ফার্মহাউজের মামলায় শাহরুখকে আরও বিপাকে ফেললেন কিং খানের প্রাক্তন চ্যাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট মোরেশ্বর আজগাওঙ্কর।

সূত্রে খবর, চিঠি লিখে আয়কর বিভাগকে বিস্ফোরক তথ্য জানিয়েছেন মোরেশ্বর আজগাওঙ্কর। তাঁর কথায় ‘দেজা ভু’ কোম্পানি নয়, শাহরুখই আসলে এই বেনামী সম্পত্তির মালিক। আর খোদ কিং খানই তাঁকে আলিবাগের ফার্মহাউজের ভুয়ো দলিল তৈরি করতে বলেছিলেন।

শাহরুখ আদপে আলিবাগের ফার্মহাউজের মালিক হিসাবে দেখিয়েছেন ‘দেজা ভু’ নামে একটি কোম্পানিকে। যে কোম্পানির ডিরেক্টর শাহরুখের শ্বশুর রমেশ ছিব্বর, শাশুড়ি সবিতা ছিব্বর ও শ্যালিকা নমিতা ছিব্বর।

দেখানো হয়েছে ‘দেজা ভু’ কোম্পানি আয়ের একাংশ আসে কৃষিকাজ থেকে। অথচ এমন কোনও আয়ই নাকি দেখাতে পারেনি ‘দেজা ভু’।  দেখানো হয়েছে ‘দেজা ভু’ কোম্পানিকে এই চাষের জমি কিনতে ৮.৫কোটি টাকা ঋণ দিয়েছিলেন শাহরুখ। আর এ থেকেই আয়কর দফতরের ধারণা হয় আলিবাগের ফার্মহাউজের আসল মালিক শাহরুখ। আর সেই ধারণা আরও জোরালো হল আয়কর বিভাগকে লেখা মোরেশ্বর আজগাওঙ্করের চিঠিতে।

তবে শুধু আইন ভেঙে বেনামি ফার্মহাউজ বানানোই নয়, উঠেছে আরও অনেক প্রশ্নই।  চাষের জন্য কেনা জমিতে কেন বানানো হল এই বিলাসবহুল বাংলো। উপকূলবর্তী অঞ্চলে যেখানে সুইমিং পুল বানানো নিষিদ্ধ সেখানে শাহরুখের আলিবাগের ফার্মহাউজে রয়েছে সুইমিং পুল, হ্যালিপ্যাড, কৃত্রিম সমুদ্রতট আরও কত কি!

সূত্রের খবর, আয়কর দফতরের প্রশ্নের সমস্ত উত্তর ঠিকমত না দিতে পারলে বড়সড় আইনি জটিলতায় জড়াতে পারেন কিং খান। সম্পত্তি তো হাতছাড়া হবেই অপরাধ প্রমাণিত হলে বিপুল পরিমাণ জরিমানা এমনকি হাজতবাসও হতে পারে শাহরুখের।