সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে অভিযান, ১০টি ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী রকেট উদ্ধার

বিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে অভিযান চালিয়ে ১০টি ট্যাঙ্ক বিধ্বংসী রকেট লঞ্চার উদ্ধার করেছে র‍্যাব। শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত এই অভিযান চালানো হয় বলে র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের প্রধান মুফতি মাহমুদ খান জানান।

তিনি বলেন, একটি বাংকারের ভেতর থেকে চীনের তৈরি টাইপ ৬৯ মডেলের ১০টি রকেট উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত ৪০ মিলিমিটার হাই এক্সপ্লোসিভ এ রকেটগুলো ১৫০০ মিটারের মধ্যে ট্যাঙ্ক বা গাড়ি ধ্বংস করতে সক্ষম। রকেটগুলো দেশের কোনো সন্ত্রাসী বা জঙ্গি গোষ্ঠী ব্যবহার করে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এমন কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই।

সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদী কোনো গ্রুপ এগুলো মজুদ করে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে, বলে জানান তিনি। মুফতি মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের সীমান্তবর্তী সাতছড়িতে র‍্যাব ইতিপূর্বে ছয়বার তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ মর্টার সেল, রকেট লঞ্চার, মেশিনগানসহ গোলাবারুদ উদ্ধার করে। এর অংশ হিসেবে এ অভিযান চালানো হয়।

এর মধ্যে এক অভিযানে পাহাড়ে বাঙ্কারের অস্তিত্বও পাওয়া গিয়েছিল। এসব অস্ত্র গোলা বারুদ ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী কোনো দলের হতে পারে বলে সে সময় ধারণা দিয়েছিলেন র‍্যাব কর্মকর্তারা। ২০১৪ সালের ৩ জুন, ২৯ আগস্ট, ২ ও ১৭ সেপ্টেম্বর এবং ১৬ অক্টোবর সেখানে পাঁচ দফা অভিযান চালায় র‍্যাব।

এর মধ্যে ১৬ সেপ্টেম্বরের অভিযানে ত্রিপুরা পল্লীর একটি বাড়ির ছাগল রাখার ঘরের নিচে একটি বাঙ্কারে ১৪ বস্তা গোলাবারুদ পাওয়া যায়। এসব অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় তিনটি মামলা করা হলেও কোনো আসামির খোঁজ না মেলায় চুনারুঘাট থানা পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়। ২০১৬ সালের ১৫ জুন ওই বনে আরও একবার অভিযান চালানো হলেও তখন কিছু পায়নি র‍্যাব।