‘ফাইভ স্টার হোটেলে বিএনপির সভা, লজ্জায় হাছান মাহমুদ’

একটি ফাইভ স্টার হোটেলে বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভা করবে এমনটা শুনে লজ্জা পেয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও সাবেক মন্ত্রী হাছান মাহমুদ। বলেছেন, ‘বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সভা হবে লা মেরেডিয়ান ফাইভ স্টার হোটেলে। এটি আমার কল্পনা করতেও লজ্জা হচ্ছে। যারা ফাইভ স্টার হোটেলে কার্যনির্বাহী কমিটির সভা করে তারা জনগণের প্রতিনিধিত্ব করতে পারে না।’ শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সমাবেশে এসব কথা বলেন হাছান মাহমুদ। ‘জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস চাঁদাবাজের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও শ্রমিক সমাজ’ শীর্ষক এ সমাবেশের আয়োজন করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগ।

২০১৬ সালের মে মাসে অনুষ্ঠিত হয় বিএনপির ষষ্ঠ কাউন্সিল। সেই কাউন্সিলে গঠিত জাতীয় নির্বাহী কমিটির প্রথম সভা ডেকেছে দলটি। সভাটি করতে রাজধানীর বিভিন্ন ভ্যানুতে অনুমতি চাইলেও প্রশাসন অনুমতি দেয়নি বলে জানায় দলটি। সবশেষ বৃহস্পতিবার বিএনপির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে শনিবার তারা রাজধানীর হোটেল লা মেরেডিয়ানে সভাটি করবে।

হাছান মাহমুদ বিএনপির এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে বলেন, ‘বিএনপির কমিটি একটি জাম্বু জেকেট মার্কা কমিটি। তারা তিন বছর পর নির্বাহী কমিটির সভা করবে একটি ফাইভ স্টার হোটেলে। এটা ভাবতেও আমার লজ্জা হচ্ছে।’ ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলার রায় দেবে আদালত। এই রায়কে কেন্দ্র করে নেতাকর্মীদের রাজপথে থাকার আহ্বান জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আগামী ৭,৮ ও ৯ ফেব্রুয়ারি আপনাদের রাজপথে থাকতে হবে। বিএনপি যেন কোনো ধরনের সহিংসতা সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। আর যদি সাধারণ মানুষের ওপর পেট্রলবোমা, হামলা করা হয় তাহলে শুধু প্রতিহত করবো না তাদের ধরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেব।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিএনপি ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান এর সঙ্গে আমাদের তুলনা করে। সেখানে কি সহায়ক সরকার এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকার আছে? নেই। আর আপনারা এসব দেশের উদাহরণ দেন। নির্বাচনীকালে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকবেন, বর্তমান সরকার নির্বাচনকালেও দায়িত্ব পালন করবে। এর বাইরে কিছু হতে পারে না।’

সমাবেশ আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ইউনুস আলী, বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন টয়েল প্রমুখ।