অলৌকিক জগতে বিচরণের গল্প নিয়ে সুহী আহমেদের “দ্বৈত জীবন”

অনেকেরই বিভিন্ন রকমের ইচ্ছে থাকে। ভিন্ন রকমের ইচ্ছের এক উদাহরণ হল নবীন লেখিকা সুহী আহমেদ সুসান। ছেলেবেলা থেকেই লেখালেখির অভ্যাস ছিল তার। আর এই অভ্যাসটা যে সাফল্যে পরিণত হবে সেটা তার কল্পনাতেও ছিল না। লেখালেখি করতে করতে কখন যে দুটি উপন্যাস লিখে ফেললেন তা টের ও পাননি তিনি।

২০১৭ সালের অমর একুশে বইমেলায় অন্যধারা ২৪ প্রকাশনীতে প্রকাশিত হয় তার প্রথম উপন্যাস “বৃষ্টির অপেক্ষা”। প্রকাশিত হওয়ার পর তরুণ পাঠকদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায় এই উপন্যাসটি। এরই সূত্র ধরে আরেকটি উপন্যাস লিখে ফেলেন নবীন লেখিকা সুহী আহমেদ সুসান।

এই বছর ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে অমর একুশে বইমেলা ২০১৮। অমর একুশে বইমেলার ছায়াবীথি প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় নবীন লেখিকা সুহী আহমেদ সুসানের লেখা দ্বিতীয় উপন্যাসটি। কল্পনার এক অলৌকিক জগতে এক তরুণীর বিচরণ নিয়ে লেখা এই উপন্যাসের নাম দিয়েছে “দ্বৈত জীবন”। উপন্যাসটি একটি রহস্যগল্প যেখানে কল্পনা এবং বাস্তবতার ব্যবধান মিলিয়ে গিয়ে গড়ে উঠেছে ব্যাখ্যাতীত এক জগত।

নবীন এই লেখিকার উপন্যাসের কিছু কথা

দ্বৈত জীবন

সুহী আহমেদ সুসান

“নিহার ঘুম ভাঙলো তীব্র অ্যালার্মের শব্দে। চোখ খোলার আগেই সে মনে মনে ভাবল এত কর্কশ শব্দের অ্যালার্মক্লক কে রাখল তার রুমে? সে ভাবল আবার ঘুমিয়ে পড়বে কিনা, হয়ত ঘুম পুরোপুরি কাটেনি তাই সব এত অদ্ভুত লাগছে । সকালের উজ্জ্বল রোদ পায়ের উপর পরে পা চড়চড় করছে, এত আলোয় চোখ খুলতেও তার কষ্ট হচ্ছে। নিহার নাকে অপরিচিত একটা গন্ধ এসে লাগল, ঘরে এমন অপরিচিত গন্ধ কেন? নিহা চোখ পিটপিট করে চারপাশ দেখার চেষ্টা করল। দেয়ালে চেলসির পোস্টার, মেঝের কোণায় ফুটবল পড়ে আছে, এর মানে কি? নিহা হঠাৎ ধড়মড় করে উঠে বসল। এই ঘর, এই পোস্টার, এই অদ্ভুত গন্ধ সবকিছু তার অপরিচিত। কোথায় আছে সে? খাটের পাশে রাখা টেবিলে পানির গ্লাস দেখামাত্র বুঝল তার প্রচণ্ড তৃষ্ণা পেয়েছে। হাত বাড়িয়ে নিহা গ্লাসটা নিল। তখনই দেখল রুমের দরজা দিয়ে দানবাকার একটি কালো কুকুর ঢুকছে। তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে তাকে দেখছে আর ধীর পায়ে এগিয়ে আসছে। রোদের আলোয় তার দাঁত গুলো চকচক করছে। অস্ফুষ্ট একটা শব্দ করে ছেড়ে দেওয়া মাত্রই ঝনঝন করে গ্লাসের ভাঙ্গা টুকরা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ল।”

বিভিন্নসময় বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় তার বাবার চাকরির সুবাদে বাস করেছেন। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের ছাত্রীর অবসর কাটে দেশী বিদেশী বিভিন্ন লেখকের বই পড়ে। নবীন এই লেখিকা বাংলাদেশের তরুণ সমাজ এবং আধুনিক জীবনযাত্রা নিয়ে লেখালেখিতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। মানুষের চরিত্রের অনিশ্চয়তা এবং রহস্যময়তা নিয়ে ভবিষ্যতে তার আরও লেখালেখির আগ্রহ আছে।

সুহী আহমেদ সুসানের জন্ম ২৮শে জুন, ১৯৯৪ (১৪ আষাঢ়, ১৪০১ বঙ্গাব্দ) ঢাকায়। তিনি তার বাবা নাসির উদ্দিন আহমেদ (পেশায় যুগ্ম সচিব) এবং মা ওয়াহিদা পারভীনের (পেশায় উকিল) মধ্যম সন্তান। ছোটবেলা থেকেই লেখালেখি করে যাচ্ছেন। ২০১৭ সালের বইমেলার তার প্রথম উপন্যাস ‘বৃষ্টির অপেক্ষা’(অন্যধারা২৪) প্রকাশিত হয়। গল্প লেখার নানারকম প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে বিভিন্ন পুরস্কার পেয়েছেন। তার মধ্যে ছুটিরদিনে ভালবাসার অণুগল্পে প্রথমস্থান (২০১০), কালের কন্ঠ আয়োজিত ‘ভালবাসার গল্প’ এবং ‘ঐতিহ্য-গোল্লাছুট প্রথমআলো গল্পলেখা প্রতিযোগিতা’ উল্লেখযোগ্য।

উল্লেখ্য তার এই দ্বিতীয় উপন্যাসটি একুশে বইমেলার ‘ছায়াবীথি প্রকাশনীতে’ পাওয়া যাবে।