‘প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে যা করা সম্ভব তাই করছি’

‘প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে মানুষের পক্ষে যা কিছু করা সম্ভব তা সবই আমরা করে যাচ্ছি। কোথাও প্রশ্নফাঁসের প্রমাণ পাওয়া গেলে সারা দেশে সে দিনের পরীক্ষা বাতিল করা হবে। আমরা আশা করছি এবার আর কোনোভাবেই প্রশ্নফাঁস হবে না।’ বৃহস্পতিবার রাজধানীর গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি হাইস্কুলে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র পরির্দশনের পর শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার সারা দেশে অভিন্ন প্রশ্নপত্রে এসএসএসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাই আমরা অনেক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি। কেউ যদি প্রশ্নফাঁসের মতো নোংরা কাজের মধ্যে জড়িত হয়, তাকে কোনোভাবেই রেহাই দেয়া হবে না। এ বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সংস্থা কাজ করছে। সন্দেহজনক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে।

এসএসসি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে আয়োজনে শিক্ষামন্ত্রী রাজনৈতিক ও অরাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে বলেন, এরা তো আপনাদের সন্তান। তাই আপনারা এমন কোনো কাজ করবেন না যাতে পরীক্ষার্থীদের অসুবিধা হয়। যদি এমন পরিস্থিতি ঘটে তবে পূর্বের অভিজ্ঞতা অনুয়ায়ী বিকল্প পন্থায় পরীক্ষা চালিয়ে নেয়া হবে।

শিক্ষক-অভিভাবকদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে মন্ত্রী বলেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ করছি, কেউ প্রশ্ন কেনাবেচার মধ্যে জড়িত হবেন না। আমরা সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা শেষ করতে চাই। যদি প্রশ্নপত্রের মতো দেখতে এমন কিছু আদান-প্রদান করা হয়, তবে সেও প্রশ্নফাঁসের অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত হবেন।

৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে প্রবেশ অভিভাবদের জন্য বাড়তি ভোগান্তি এমন অভিযোগ তুলে ধরলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার তো একটা নির্ধারিত সময় থাকবে। আমরা এবার থেকে পরীক্ষার সময় কমিয়ে এনেছি। তাই ৩০ মিনিট আগেই বাধ্যতামূলক কেন্দ্রে প্রবেশ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এটি মাথায় নিয়ে সকলকে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের অনুরোধ জানান তিনি।