টানা চতুর্থবারের মত লিগ ওয়ানের ফাইনালে পিএসজি

টানা চতুর্থবারের মত লিগ ওয়ানের শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ের আসল মঞ্চে উঠে গেল প্যারিস সেইন্টা জার্মেইন (পিএসজি)। মঙ্গলবার রাতের সেমি-ফাইনালে উনাই এমেরির শিষ্যরা ৩-২ গোলে হারিয়েছে অষ্টম স্থানে থাকা রেনকে। শেষ দিকে মারাত্মক ফাউল করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন কিলিয়ান এমবাপে। ফরসি জায়ান্টদের হয়ে গোল তিনটি করেছেন তমাস মুনিয়ে, মার্কিনিয়োস এবং জিওভানি লো সেলসো।

মঙ্গলবার রাতের ম্যাচে পিএসজির একাদশে ছিলেন না উরুগুয়ের তারকা এডিনসন কাভানি। তাকে ছাড়াই এই নিয়ে টানা পঞ্চমবারের মত ফরাসি লিগ কাপের ফাইনালে উঠল উনাই এমেরির দল। সর্বশেষ ২০১২ সালে এই প্রতিযোগিতায় হেরে যাওয়া দলটি গত চার আসরেই শিরোপা জিতেছে। ফাইনালে ওঠার এই ম্যাচে অবশ্য সতীর্থের গোলে অবদান রেখেছেন ব্রাজিল সুপারস্টার নেইমার।

রেনর মাঠে স্বাগতিকরাই শুরু থেকে আক্রমণ করার চেষ্টা করে যাচ্ছিল। বল দখলে রাখা কঠিন হয়ে যাচ্ছিল পিএসজির জন্য। এরই মাঝে ২৪তম মিনিটে একক নৈপুণ্যে দলকে এগিয়ে দেন ফরাসি ডিফেন্ডার মুনিয়ে। একাই কয়েকজনকে কাটিয়ে দারুণ ক্ষিপ্রতায় ভলিতে দূরের পোস্ট দিয়ে বল জালে পাঠান তিনি।

৫৩তম মিনিটে মাঝমাঠ থেকে মার্কো ভেরাত্তির দারুণ ক্রস নেইমার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে পাঠিয়ে দেন আনহেল ডি মারিয়াকে।গোলকিপার চেষ্টা করেও আর্জেন্টাইন তরুণ তুর্কির আক্রমণ ঠেকাতে পারেননি। স্কোর দ্রুতই ২-০ হয়ে যায়। পাঁচ মিনিট পর ডি-বক্সে ডি মারিয়ার ছোট পাস ধরে একটু এগিয়ে কোনাকুনি শট নেন আরেক আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার লো সেলসো। মজার ব্যাপার হলো, বলটি গোলকিপারের পায়ে লেগে জালে জড়ায়। পিএসজির জার্সিতে প্রথম গোল হয়ে যায় সেলসোর।

৬৪তম মিনিটে অনাকাঙ্খিত ঘটনার শিকার হয় উভয় দল। মারাত্মক ফাউল করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন এই ম্যাচ দিয়েই চোট কাটিয়ে ফেরা ফরাসি ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপে। ১০ জনের দল নিয়ে খেলতে থাকা পিএসজির দূর্গে প্রথম আঘাত হানেন সেনেগালের ফরোয়ার্ড দিয়াফ্রা সাকো। ৮৫তম মিনিটে স্কোরলাইন ৩-১ করে ফেলেন তিন। যোগ করা দুই মিনিটে আরও একটি গোল খায় পিএসজি। তবে শেষ পর্যন্ত জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে তারা।