‘সবাই হাত তুলে ওয়াদা করেন নৌকা মার্কায় আবারও ভোট দেবেন’

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে জনসভায় উপস্থিত জনতাকে ওয়াদা করালেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এ ওয়াদা করান।

আওয়ামী লীগ উন্নয়নে বিশ্বাসী জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনেও নৌকা মার্কায় ভোট দেবেন। সবাই হাত তুলে ওয়াদা করেন নৌকা মার্কায় আবারও ভোট দেবেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি। সারে ভর্তুকিসহ কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা দেয়া হয়েছে। এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছিলাম। আজ বাংলাদেশ ডিজিটাল হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দেশে উন্নয়ন করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমরা যদি ২০১৪ সালে ক্ষমতায় না আসতাম, তাহলে এই উন্নয়ন দেখতে পেতেন না। লুটেরারা আসলে লুটপাট করতো, লুট করে খেত। এসময় আওয়ামী সভাপতি বলেন, আপনারা অতীতে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়েছেন। ভোট দিয়ে স্বাধীনতা পেয়েছেন। উন্নয়নের জন্য আবারও আওয়ামী লীগকে ভোট দেবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালে আমরা উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ হবো। আর ২০৪১ সালে আমরা হবো উন্নত দেশ। ভিক্ষুক জাতির কোনো ইজ্জত থাকে না, বলেছেন জাতির পিতা।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় বাংলাদেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, তাদের কারণে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়। তাদের আমলে বাংলা ভাইয়ের সৃষ্টি, জঙ্গিবাদের সৃষ্টি। ২০০১ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার দেশে হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকানোর নামে সন্ত্রাস-তাণ্ডব চালিয়েছিল। সেই সময় অনেক মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করেছে। সিএনজি চালিককে পুড়িয়ে মেরেছে তারা। হাজার হাজার গাছ কেটে ফেলে। আমরা গাছ লাগাই, তারা গাছ কেটে ফেলে, আমরা রাস্তা করি, তারা ধ্বংস করে। তবে আমরা তাদের সেই জ্বালাও-পোড়াও কঠোর হাতে দমন করেছি। জনগণ যখনই তাদের প্রতিরোধ করেছে, তারা পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে।