ফরিদপুরে কলা বাগানের দুই হাজার গাছ নিধন

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা গাজীরটেক ইউনিয়নের চরঅযোধ্যা মোল্যা ডাঙ্গী গ্রামের কলাচাষী মোঃ ফজল বেপারীর বাগানের প্রায় ২ হাজার ২শ’ কলা গাছ নীধন করে রেখে গেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল বুধবার দিবাগত রাতে উন্মুক্ত ফসলী মাঠের মধ্যে গড়া কলা বাগানে প্রায় ২ হাজার ২শ’ গাছের মাথা অংশ থেকে বিচ্ছিন্ন করে রেখে গেছে দুস্কৃতকারীরা। এতে প্রায় ১১ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে এবং পরিবারটি সর্ব নিঃস্ব হয়ে গেছে।

এ নিয়ে গত দু’বছরে ওই কলা চাষীর বাগানে দু’দফায় মোট প্রায় ৪ হাজার ২শ’ কলাগাছ নীধন করা হলো। গত ইউপি নির্বাচনের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জের ধরে ফজল বেপারীর কলা বাগানের বৃক্ষগুলো বছর বছর একের পর এক নীধন করা হচ্ছে বলে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের ধারণা। এ ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্থ কলাচাষী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করতে আসবেন বলে জানিযেছেন।

বৃহস্পতিবার ক্ষতিগ্রস্থ কলাচাষী ফজল বেপারী জানায়, পিতার মৃত্যুর পর গত তিন বছর আগে বসতবাড়ীর পিছনে উন্মুক্ত ফসলী মাঠের মধ্যে ৫ বিঘা জমির ওপর একটি সবরী কলা বাগান গড়েছিলেন তিনি। নিজের সর্ব পূঁজি খাটিয়ে ওই কলা বাগানের আয় দিয়েই তাঁর পরিবার চলতো। প্রথম বছর বাগান থেকে ভালো আয় হওয়ার পর ২য় বছর একই বাগানে আবারো কলাচাষ করেন তিনি। ওই বছর এলাকায় ইউপি নির্বাচন এলে তিনি গ্রামের এক প্রভাবশালী চেয়ারম্যান প্রার্থীকে সমর্থন না দিয়ে পার্শ্ববতী গ্রামরে আরেক প্রার্থীকে সমর্থন দেন। এতে কলাচাষীর গ্রামের চেয়ারম্যান প্রার্থী ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁকে বার বার হুঁমকী দিতে থাকে। কিন্তু ওই কলাচাষীর সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ ইয়াকুব আলী ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ্ওই ইউপি নির্বাচনের কিছুদিন পর গত বছর রাতের আধারে কলাচাষীর বাগানের প্রায় ২ হাজার বৃক্ষ নীধন হয়। সেই ক্ষতিগ্রস্থ বাগানটি করাচাষী পূণঃবার গড়ে তোলেন।

কিন্তু গত বুধবার রাতে একই কায়দায় কলা চাষীর বাগানটি পূন:বার ধ্বংস করা হয়েছে। এ ব্যপারে উপজেরার গাজীরটেক ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইয়াকুব আলী বলেন, “১ম বার কলা বাগানটি ধ্বংস করার পর অনেক টাকা ঋন এবং ধার দেনা করে ফজল বেপারী বাগানটি ২য় দফায় গড়েছিল। কিন্তু এ বছর বাগানের প্রায় ২ হাজার উঠতি ও থোর কলাগাছ যেভাবে বিনষ্ট করা হয়েছে তাতে পরিবারটি সর্বনিঃস্ব হয়ে গেছে”।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি