গুজরাটে মাটি খুড়ে ডাইনোসরের ডিম!

পৃথিবীতে প্রথম ডাইনোসরের বিবর্তন হয়েছিল আনুমানিক ২৩ কোটি বছর পূর্বে। কিন্তু প্রায় সাড়ে ৬ কোটি বছর পূর্বে বিধ্বংসী প্রাকৃতিক বিপর্যয় ডাইনোসরদের পৃথিবী থেকে সম্পূর্ণ বিলুপ্ত করে দেয়। সম্প্রতি ভারতের গুজরাটে মাটির নীচে সেই ডাইনোসেররই একটি ডিম পাওয়া গেছে বলে দাবি করা হচ্ছে। যা নিয়ে রীতিমতো হুলস্থুল কাণ্ড বসেছে সেখানে।

জানা গেছে, গুজরাটের মহিসাগর জেলার বালাসিনোরে মাটি খুড়ে ওই ডিম পাওয়া যায়। যদিও এটাই প্রথমবার নয়, এর আগেও এই অঞ্চলে খোঁজ মিলেছিল ডাইনোসরাসের বিভিন্ন জীবাশ্মের। পুরাতাত্ত্বিকদের ভাষায় এই অঞ্চলকে ডাইনোসরাসের ‘আঁতুড়ঘর’ বলা হয়।

সম্প্রতি বালাসিনোর থেকে ১০ কিমি দূরে মুওয়াদা গ্রামের চাষিরা মাটি খোঁড়াখুড়ির সময় হঠাৎই দেখতে পায় একটি জীবাশ্ম, যেটা সম্ভবত ডাইনোসরাসের ডিম বলে মনে করা হচ্ছে।  তবে খোঁড়াখুড়ির ফলে জীবাশ্মটি সামান্য ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানা গেছে।

ইতিমধ্যে ডিমটিকে গবেষণার জন্য পাঠানো হয়েছে জিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়াতে।  কিছুদিনের মধ্যেই জানা যাবে ডিমটি আদৌ ডাইনোসরাসের নাকি অন্য কোনও প্রাণীর।

তবে প্রাথমিক অনুমান, ডিমটি কোনও ‘রাজাসরাস নর্মাডেনসিস’ প্রজাতির ডাইনোসরাসের, যারা প্রায় ৭২ লক্ষ বছর আগে পৃথিবী থেকে উধাও হয়ে গেছে।  এরা প্রধানত লম্বায় ৭ থেকে ৯ মিটার লম্বা এবং চওড়ায় ২.৪ মিটার চওড়া হত।  এরা প্রধানত মাংসাশাসী ছিল।  ১৯৮২ সালে প্রথম সুরেশ শ্রীবাস্তব এই প্রজাতির ডাইনোসরাসের জীবাশ্ম আবিষ্কার করেন।

বালাসিনোরে একটি ফসিলস পার্ক রয়েছে যার দায়িত্বে রয়েছে বালানিসোরের রাজপরিবার।  ১৯৮০ সালে এই অঞ্চলে প্রথম জীবাশ্মের হদিশ পাওয়ার পর তৎকালীন সরকার এখানে একটি ফসিলস পার্ক তৈরি করে।  উল্লেখ্য, এখানে প্রচুর ডাইনোসরাসের ফসিলও রয়েছে।  মনে করা হচ্ছে, ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে নর্মদা উপত্যকায় বিশালাকৃতি ডাইনোসরদের বসবাস ছিল।