স্বামীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে স্ত্রীকে ধর্ষণ

ভারতের গুরগাঁওয়ে স্বামী ও দেবরের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে তাদের সামনেই স্ত্রীকে ধর্ষণ করেছে দুর্বৃত্তরা। স্থানীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, সোমবার দিবাগত রাতে গুরগাঁওয়ের সেক্টর-৫৬ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। দুর্বৃত্তরা গাড়ি থেকে টেনে-হিঁচড়ে ওই নারীকে বের করে নিয়ে আসে। এরপর স্বামী ও দেবরের কপালে পিস্তল ধরে তাকে ধর্ষণ করে।

পুলিশ জানিয়েছে, তারা এ ঘটনায় চারজনকে আটক করেছে। ২২ বছর বয়সী ওই নারী পারিবারিক এক অনুষ্ঠান শেষে রাতে স্বামী-দেবরের সঙ্গে বাড়ি ফিরছিলেন। ভুক্তভোগী নারীর ভাষ্য, অনুষ্ঠান শেষে দেবরের গাড়িতে তারা বাড়ি ফিরছিলেন। পথে সেক্টর ৫৬ এলাকায় ওই নারীর স্বামী টয়লেটের জন্য বের হন। পুলিশের কাছে অভিযোগে ভুক্তভোগী নারী জানান, হঠাৎ দুটি কার গাড়ি তাদের ঘিরে ধরে। এক পর্যায়ে চার ব্যক্তি নেমে আমরা এখানে কেন গাড়ি থামিয়েছি, তা জানতে চান।

এসিপি ও গুরগাঁও পুলিশ স্টেশনের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা মানিষ শেগাল ভুক্তভোগীর বরাত দিয়ে বলেন, এরপরই ঘটে ভয়াবহতম ঘটনা। গাড়ি থেকে ওই নারীকে টেনে-হিঁচড়ে বের করে আনা হয়। এদের মধ্যে তিনজন তার স্বামী ও দেবরের মাথায় বন্দুক ধরেন। অন্যজন তাকে সবার সামনেই ধর্ষণ করেন।

দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই নারীকে ঘটনা ফাঁস করলে হত্যার হুমকিও দেয়। পরে স্বামী ও দেবরের সঙ্গে এসে তিনি থানায় অভিযোগ করেন। পালানোর সময় দুর্বৃত্তদের একটি গাড়ির নম্বর টুকে রাখেন ওই নারীর স্বামী। পুলিশ কর্মকর্তা মানিষ জানান, গাড়ির নম্বরের সূত্র ধরে গুরগাঁও সোহনার জোহালকা গ্রাম থেকে চারজনকে আটক করা হয়েছে।