ব্যক্তিগত কর্মকর্তার বিষয়ে মুখ খুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী!

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের একজন ব্যক্তিগত সহকারী ও তার মন্ত্রণালয়ের এক কর্মচারী এবং লেকহেড গ্রামার স্কুলের মালিককে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। রোববার রাতে মোতালেবকে মোহাম্মদপুরের বছিলা এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মচারী নাসির উদ্দিন ও লেকহেড গ্রামার স্কুলের মালিক খালেদ হাসান মতিনকে গুলশান থেকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে ডিএমপির উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান জানিয়েছেন।

নিজের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পিও) মো. মোতালেব হোসেনকে গ্রেফতারের পর এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। মোতালেবের দুর্নীতি প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন,‘(কেউ) কোনও অন্যায়, দুর্নীতি বা ঘুষের মধ্যে জড়াবে না (চাকরিবিধিতে) এরকম তো বলা আছেই। কিন্তু তারা এধরনের কাজে জড়িত এমন রিপোর্ট কেউ আমাদের দেয় নাই।’

আজ  সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধরেছে বলে এখন তো আমরা শিওর হলাম। নিশ্চয় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে। সেটা কোর্টে প্রমাণ হবে, তার শাস্তি হবে। সেই অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, আমরা কখনো কোনও অন্যায়কারী, ঘুষ খাওয়া, দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত, বেআইনি কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত কোনও লোককে প্রশ্রয় দেবো না। ওই অপরাধে অপরাধী হলে চাকরিবিধি অনুসারে যে ব্যবস্থা আছে সেটা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

এর আগে গতকাল শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা (পিও) মো. মোতালেব হোসেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রেষণে কর্মরত উচ্চমান সহকারী নাসিরউদ্দিন ও হেড গ্রামার স্কুলের মালিক খালেদ হাসান মতিনকে গ্রেফতার করা হয়। রবিবার সকাল সাড়ে ৮টায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের রিসিভ ও ডেসপাস শাখার উচ্চমান সহকারী মো. নাসিরুদ্দিনকে এক লাখ ত্রিশ হাজার টাকাসহ গুলশান এলাকা হতে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার সঙ্গে যোগাযোগের সূত্র ধরে মোতালেব হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়।