সচিবকে ঘুষের প্রস্তাব, ব্ল্যাক লিস্টেড চায়না হারবার

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিবকে ঘুষের প্রস্তাব দেয়ায় চীনের প্রতিষ্ঠান চায়না হারবার ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সনের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। ঘুষের প্রস্তাব পাওয়া ব্যক্তি হিসেবে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিবের কথা জানালেও তিনি বর্তমান সচিব নজরুল ইসলাম নাকি গত অক্টোবরে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়া সচিব এম এ এন ছিদ্দিক তার স্পষ্ট করেননি মন্ত্রী।

বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ফোরামের (বিডিএফ) সংবাদ সম্মেলনে একটি চায়না কোম্পানির (চায়না হারবার) বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে বলেছিলেন ওরা ঘুষ দিয়েছিল। যে সব কর্মকর্তাকে ঘুষ দিয়েছিল তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা- জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘নিশ্চয়ই না। তারা সেক্রেটারিকে ঘুষ দিতে চেয়েছিল, সেক্রেটারি তা আমাকে জানিয়েছে।’

ঘুষের পরিমাণ কত- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কত বলল আমি ভুলে গেছি। ৫০ লাখ বা এমন কিছু হবে।’ এ কোম্পানি কী ব্ল্যাক লিস্টেড- এমন প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, ‘অবকোর্স (অবশ্যই)।’ অন্য কোনো কাজ কি এ কোম্পানি করতে পারবে- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘নো নো, দে ক্যান নট (তারা পারবে না)।’ অলরেডি তো কিছু কাজ তারা পেয়েছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘সেটাও দেখা যাক কি করা যায়। নরমাল নিয়ম হল ব্ল্যাক লিস্টেট মিনস ব্ল্যাক লিস্টেড।’

চীনের প্রতিষ্ঠান কি কাজ পাওয়ার জন্য ঘুষ দিতে চেয়েছিল- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘কাজ তো হয়ে গেছে। পেয়ে গেছে তারা। এটা আমার জাস্ট মনে হয় খুশি রাখা। তারা চুরি করবে।’ ঘুষের অভিযোগ ওঠায় চায়না হারবারকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক চার লেন প্রকল্পের কাজ দেয়া হয়নি বলে সোমবার বিডিএফের অনুষ্ঠানে জানিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী।