ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (উত্তর) নির্বাচনে নৌকার মাঝি হতে চান যারা

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে ঢাকা শহরকে দুটি অংশে বিভক্ত করা হয়। উত্তর ও দক্ষিণ এই দুই অংশ দুইজন মেয়রের অধীনে দেয়া হয়। এর মধ্যে ঢাকা উত্তরে নতুন ৩৬টি ওয়ার্ড সংযুক্ত করে উত্তরে প্রসারতা বৃদ্ধি নি:সন্দেহে প্রসংশার দাবী রাখে।আর ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক অকাল প্রয়াত হওয়ায় ও নতুন ৩৬টি ওয়ার্ড সহ উত্তর সিটি কর্পোরেশনে নির্বাচন অপরিহার্য হয়ে পড়ে।

এয়ারপোর্ট সংলগ্ন দক্ষিণখান থানা একটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা হওয়ায় নির্বাচনী হাওয়ায় অনেকটা উৎসাহ, উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায় সাধারন মানুষের মাঝে। একদিকে যেমন সাধারন মানুষের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলনের উদ্দীপনা অন্যদিকে তেমনী নেতা-নেত্রীর দলীয় নমিনেশন পাওয়ার দেন-দরবার, প্রচার প্রচারনা, ভাব-বিনিময়ের মাধ্যমে নিজেকে সক্রিয় করে তোলার মানষে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে নিয়োজিত আছেন।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) নব নিযুক্ত ৪৮ নং ওয়ার্ডের আওয়ামীলীগ প্রার্থীরা এ ওয়ার্ডকে ডিজিটাল ওয়ার্ড হিসেবে গড়তে চান। সরু রাস্তা, অবৈধ অটো রিক্সার সৃষ্ট যানজট, সঠিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকা, গ্যাস সংকট, অহেতুক জলাবদ্ধতা ও ভাঙ্গা রাস্তাঘাট প্রতিনিয়ত লাখো মানুষের যে দূর্ভোগ সৃষ্টি করেছে সে সকল সমস্যা সমাধান কল্পে মানুষের সেবা প্রদানই তাদের মূল উদ্দেশ্য।

ডিএনসিসির ৪৮/৪৯ নং ওয়ার্ডে দক্ষিণখান, সোনার খোলা, হলান, আনল, বরুরা ,জাবুন, গাওয়াইর, আশকোনা ও কাওলা নিয়ে গঠিত। এই দুই ওয়ার্ডে প্রায় দুই লক্ষাধিক ভোটার। এত ভোটারের সেবার মান বাড়াতে নৌকার মাঝি হওয়ার লক্ষে উল্লেখ্য যোগ্য কর্মকান্ডে, প্রচার ও প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের মধ্যে অন্যতম আওয়ামীলীগের বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষনা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ও জাপান বাংলাদেশ মানবাধীকার সংস্থার মহাসচিব জনাব আমিনুল ইসলাম হান্নান (জাপানী হান্নান), শ্রমিক লীগের দক্ষিণখান থানার সাধারন সম্পাদক ও সমাজ সেবক জনাব শানীন আহাম্মেদ শাহীন,আওয়ামী যুবলীগের ঢাকা মহানগর উত্তরের কার্যকরী সদস্য-সাবেক সহ সভাপতি তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগ শাখা এবং বিমান বন্দর থানা ছাত্রলীগের সাবে সভাপতি আলহাজ্ব রবিউল ইসলাম রবি এবং বর্তমান দক্ষিণখান আদর্শ ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জনাব আলহাজ্ব শফিউদ্দিন মোল্লাপনু ও দক্ষিণখান থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক জনাব একেএম মাসুদুজ্জামান মিঠু।

আওয়ামীলীগ ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে সকলেই উক্ত ওয়ার্ডকে সফল ভাবে সাজাতে দলীয় নমিনেশন নিতে চান। কিন্তু সেটা নির্ভর করছে দলীয় হাই কমান্ডের উপর। এ প্রসঙ্গে জনাব আমিনুল ইসলাম হান্নান বলেন “নিজ দলের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে কাজ করছি। আমার এলাকা চাঁদনগরের (আইনুছ বাগ) মানুষের পানি সমস্যা সমাধান কল্পে নিজ উদ্যেগে পানির পাম্প স্থাপন করেছি। চাঁদনগর জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছি। মানবতার সেবায় জাপান বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থার প্রতিষ্ঠা ও নিরলস মানুষের সেবা করে আসছি। আমার চাওয়া পাওয়ার কিছুই নাই। মাটি ও মানুষের সেবাই আমার পরম ব্রত। ৪৮ নং ওয়ার্ডের মানুষের ভালবাসা আমার সেবার হাতকে আরো প্রসারিত করবে বলে আমার বিশ্বাস” দক্ষিণখান শ্রমিক লীগের সাধারন সম্পাদক শানীন আহাম্মেদ শাহীন জানান- আমি মেহনতী খেঁটে খাওয়া মানুষের জীবন খুব কাছে থেকে উপলদ্ধি করেছি। নিজের জীবন বাজী রেখে শ্রমিক ভাইদের সাথে রাজপথে সংগ্রাম করে অধিকার আদায় করেছি। গরীব দু:খী মানুষের পাশে ছিলাম ভোট ও ভাতের অধিকার নিশ্চিত করতে। নিজের সাধ্যমতো বিলীয়েছি অসহায় মানুষকে। স্থানীয় ৪৮ নং ওয়ার্ডের মানুষের সেবা করে যেতেচাই আমৃত্যু। মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হয়ে দলীয় আদর্শে জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের হাতকে আরো শক্তিশালী করতে চাই। সাধারন মানুষের একটু ভালবাসাই আমাকে নিয়ে যাবে বহুদূর।

বিমান বন্দও থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব রবিউল ইসলাম রবি একজন বলিষ্ট ও তরুন প্রানদীপ্ত নেতা। তার নির্বাচনী এলাকা ৪৮ নং ওয়ার্ড। তিনি উদাত্ত কন্ঠে বলেন- আমি ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতি সাথে জড়িত। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে চলার পাথেয় মনে করে এলাকার উন্নয়নে সক্রিয় ভূমিকা রেখে আসছি। গ্রেনেড হামলার সময় নিজের শরীর দিয়ে ঘিরে রেখেছিলাম দেশরত্ম শেখ হাসিনাকে। আহত নেতা নেত্রীকে রিক্সা যোগে হাসপাতালে পৌঁছে দিয়েছি। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোষ করিনি। এলাকার মানুষের ভালবাসা ও স্নেহ আমার আত্মায় মিশে আছে। সকলের ভালবাসায় আমি এগিয়ে যাব উন্নয়নের চরম শিখরে। তিনি সকলের দোয়া ও সহযোগীতা কামনা করেন।

ঢাকা মহানগর উত্তর দক্ষিণখান ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আলহাজ্ব শফিউদ্দিন মোল্লা পনু। তিনি নবগঠিত ৪৮ নং ওয়র্ডের বাসিন্দা। তিনি বলেন-সততাই আমার চলার হাতিয়ার। আমার সততাই আমাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। বিগত সাড়ে ছয় বৎসর যাবত মেম্বার হিসেবে আছি- আমি এলাকার রাস্তাঘাট, ড্রেনেজ ব্যাবস্থা সহ ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। আমার অসমাপ্ত কাজ গুলো শেষ করতে চাই। জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শে মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হয়ে ইতিহাসে অমর হতে চাই। স্কুল,মাদ্রাসা ও মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছি। নিজের বলতে শুধূ একটা প্রত্রিক বাড়ী রয়েছে। তিনি এলাকাবাসীর ভালবাসা ও সহযোগীতা কামনা করেন।

দক্ষিণখান থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক, বিশিষ্ঠ সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগি জনাব একেএম মাসুদুজ্জামান মিঠু একজ প্রচার বিমূখ শান্তি প্রিয় মানুষ। তিনি ৪৮ নং ওয়ার্ড থেকে নির্বাচন করতে চান। তাঁর বাবা মরহুম একেএম মনিরুজ্জামান ১৯৭১ সালে অত্র ইউনিয়নের প্রথম আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বলেন আমার চলার পথের আদর্শই হলো বঙ্গবন্ধু। ছাত্র রাজনীতি থেকেই আজ এত দূর পর্যন্ত এসেছি শুধু মানুষের ভালোবাসায়। ২১ আগোষ্ট গ্রেনেট হামলার সময় ষ্ট্রেজের কাছেই ছিলাম। আওয়ামীলীগের দুঃসময় আমি পাশেই ছিলাম। দলীয় নমিনেশন পেলে আমি অবশ্যই নির্বাচন করবো। ৪৮ নং ওয়ার্ডের সকল মানুষের জন্য অত্র ইউনিয়নকে ডিজিটাল ওয়ার্ডে রুপান্তর করবো। আমি অত্র এলাকার মানুষের ভালোবাসা ও দোয়া কামনা করছি।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচন ঘিরে প্রার্থীদের প্রচার প্রচারনার যেমনী কমতি নেই, দলীয় প্রভাব ও আদর্শকে বুকে আগলিয়ে মানুষের সেবা করার অদম্য প্রয়াস যেমনী প্রসংশার দাবী রাখে, ঠিক তেমনী সাধারন মানুষের প্রত্যাশারও কমতি নেই, নেই উৎসাহ, উদ্দিপনার অভাব। আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কে হবেন নৌকার মাঝি,কে শক্ত হাতে ধরবেন নৌকার বৈঠা এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

তানজীন মাহমুদ, নিজস্ব প্রতিনিধি