ফরিদপুরে বিশ লক্ষ টাকার মালামাল লোপাট, আটক-২

ফরিদপুর শহরের আলিপুর এলাকা থেকে গোপণ সংবাদের ভিত্তিতে কোতোয়ালি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বেসরকারি একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান অলিলা গ্লাসের চুরি যাওয়া বিপুল পরিমাণ পণ্য সামগ্রীসহ প্রতিষ্ঠানের দুই অসৎ কর্মকর্তাকে আটক করেছে।

শুক্রবার রাতে প্রতিষ্ঠানটির উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্তে মাঠে নামে। দীর্ঘদিন যাবৎ কোম্পানির সামগ্রী (গ্লাস) শহরস্থ গেরদা ইউনিয়নের মামুদপুর এলাকার ডিপো থেকে উধাও হয়ে আসছিলো। প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন ফরিদপুর শাখায় ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে আসছিলো। জানা যায়, গোপণ তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠানরে মালিক জানতে পারেন তারই অফিসের দুই কর্মকর্তা দীর্ঘদিন ধরে প্রতিষ্ঠানের লক্ষ লক্ষ টাকার গ্লাস ওয়্যার পণ্য গোপণে সঁড়িয়ে ফেলে বাইরে বিক্রি করে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিল। তারই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশের এই অভিযান। এই ঘটনা শহরে ছড়িয়ে পরলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, অলিলা গ্লাস ইন্ডাসট্রিজ কোম্পানি লিমিটেড ফরিদপুর ডিপো থেকে দীর্ঘদিন ধরে ডিপোর দুই কর্মকর্তা অসৎ উপায়ে দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে লাভবান হয়ে আসছিলো। বছর শেষে প্রতিষ্ঠানটি ফরিদপুর জেলায় বিপুল পরিমাণ অর্থ লোকসান গুণে যাচ্ছিলো। এক পর্যায়ে কোম্পানির সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ তদন্ত করে দেখেন যে, এই শাখায় অনিয়ম ও দূর্নিতির কারণে প্রতিষ্ঠানটি ক্ষতি গ্রস্থ হচ্ছে। তারা অফিসিয়াল বোর্ড মিটিংয়ের পর তদন্তের সিদ্ধান্ত নেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রতিষ্ঠানটির ডেপুটি ম্যানেজার (ডিস্ট্রিবিউশন) এ.কে.এম ফখরুল ইসলাম ৫ জানুয়ারী ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ প্রদান করেন। পুলিশ ০৬ জানুয়ারি তদন্ত সাপেক্ষে শহরের আলিপুর এলাকা থেকে কোম্পানির খোয়া যাওয়া বিপুল পরিমাণ পণ্য সামগ্রীসহ ফরিদপুর শাখার ডিপো ইনচার্জ মোঃ সাহাবুল হক ও রিজিওনাল সেলস ম্যানেজার মোঃ কামরুজ্জামানকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ফরিদপুর কোতোয়ালী থানাধীন মামুদপুর এলাকায় অবস্থিত অলিলা গ্লাসের ডিপো থেকে বেশ কিছুদিন যাবৎ কোম্পানির মালামাল চুরি করে বিক্রি করে আসছিল ডিপো ইনচার্জ মাদারীপুর জেলার চিরাইপাড়া গ্রামের মোঃ সাহাবুল হক (৩৫) ও কোম্পানির রিজিওনাল ম্যানেজার চুয়াডাঙ্গা জেলার কুতুবপুর গ্রামের মোঃ কামরুজ্জামান (৩৩)।
সর্বশেষ গত ৩ জানুয়ারী বুধবার বিকাল সারে পাঁচটার দিকে মামুদপুরের ডিপো হতে ঐ দুই অসাধু কর্মকর্তার যোগসাঁজসে দুইটি পিকআপ ভর্তি গ্লাস ওয়্যার পণ্য অন্যত্র সরিয়ে নেয়। বিষয়টি কোম্পানির উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের গোচরীভূত হলে তাৎক্ষণিক ঢাকা হতে অডিট টিম ফরিদপুর এসে সত্যতা নিশ্চিত করে এবং থানায় অভিযোগ দায়ের করে।

কোম্পানির পক্ষ হতে শক্রবার ৫জানুয়ারী কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ বিষয়টি তৎক্ষণিক তদন্ত শুরু করে। আজ শনিবার সকালে অভিযুক্তদের বাসা হতে প্রায় ৫০ কাটুন কাচের জিনিসপত্র উদ্ধার করে। পরে অভিযুক্ত মোঃ সাহাবুল হক ও কামরুজ্জামানকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

এ বিষয়ে ফরিদপুর সদর সার্কেলের অতিঃরিক্ত পুলিশ সুপার আমিনুর রহমান বলেন, অলিলা গ্লাস ইন্ডাষ্ট্রির পক্ষ হতে কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ করলে প্রাথমিক তদন্তে বিষয়টির সত্যতা পাওয়া যায়। আটোক ব্যাক্তিদের স্বীকারক্তি অনুযায়ী তাদের বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ চুরি হওয়া মালামাল উদ্ধার করা হয়। এ বিষয়ে কোতোয়ালি থানায় একটি নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।

হারুন-অর-রশীদ, ফরিদপুর প্রতিনিধি