পদ্মাসেতু নির্মাণ হলে তাতে কাউকে উঠবেন নাঃ খালেদা

আওয়ামী লীগ সরকার আমলে পদ্মাসেতু নির্মাণ হলে তাতে কাউকে না উঠার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার দাবি, এই সেতু হবে ঝুঁকিপূর্ণ। ছাত্রদলের ৩৯ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে আয়োজিত সমাবেশে বিএনপি নেত্রী এ আহ্বান জানান।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘পদ্মা সেতুর স্বপ্ন দেখাচ্ছে সরকার। কিন্তু পদ্মা সেতু আওয়ামী লীগের আমলে হবে না। এ সেতু জোড়াতালি দিয়ে বানানো হচ্ছে। এ সেতুতে কেউ উঠবেন না।’ সমাবেশে সরকারের কঠোর সমালোচনার পাশাপাশি আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন খালেদা জিয়া। বলেন, চেষ্টা করেও তাদেরকে বাদ দিয়ে নির্বাচন করা যাবে না।

এই সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা ছিল দুপুর দুইটায়। তবে সুপ্রিম কোর্ট দিবসে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সর্বোচ্চ আদালতে অবস্থান করায় সকাল থেকে মিলনায়তনের প্রধান ফটক তালাবদ্ধ করে রেখেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রাষ্ট্রপতি সুপ্রিম কোর্ট ছাড়ার পর মিলনায়তন খুলে দেয়া হয়। আর এই ঘটনার নিন্দা জানান খালেদা জিয়া। সমাবেশের অনুমতি দিয়েও কেন এই কাজ করা হয়েছে তার ব্যাখ্যাও চান তিনি।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘শেখ হাসিনা মিথ্যাচার করছেন। সরকারি কর্মকর্তারাও মিথ্যা কথা বলছেন। তারা বলছেন যে (সমাবেশের) অনুমতি দেয়া হয়নি। এটা কেমন কথা? যদি অনুমতি না দেন তাহলে টাকা কেন নিলেন? আমাদের ছেলেপুলে কাল থেকে স্টেজ করল, সব কিছু করল কীভাবে?’

‘অনেকদিন ধরে ছেলেরা আলোচনা সভার প্রস্তুতি নিয়েছে। অনুমতি দিয়েছে, ভাড়াও নিয়েছে। অথচ হঠাৎ করে হলরুমে তালা লাগিয়ে দিলো। এটা কেমন আচরণ?’ ৭১ এ সহযোগিতা করায় ভারতকে ধন্যবাদও জানান খালেদা জিয়া। বলেন, ‘তারা আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র, মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা আমাদেরকে সহযোগিতা করেছে। বন্ধু হিসেবে তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই, এটা আমরা মনে রাখব।’

ছাত্রদল সভাপতি রাজীব আহসানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, আবদুল মঈন খান ও ছাত্রদলে সাবেক নেতারা বক্তব্য রাখেন।