‘দেশ ও জাতির যে কোনও প্রয়োজনে ভূমিকা রাখতে সদা প্রস্তুত থাকতে হবে’

বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি দেশ ও জাতির যে কোনও প্রয়োজনে ভূমিকা রাখতে সদা প্রস্তুত থাকার জন্য বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ (রোববার) সকালে যশোর বিমান বাহিনী একাডেমিতে রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ-২০১৭ তে অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আহবান জানান।

তিনি এ সময় বলেন, ‘দেশে-বিদেশে প্রাকৃতিক বিপর্যয় মোকাবিলা, উদ্ধার তৎপরতা, ত্রাণ সামগ্রী বিতরণে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বিমান বাহিনীর তাৎপর্যপূর্ণ অবদান বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে। দেশপ্রেমের মঞ্চে উজ্জীবিত হয়ে এবং পবিত্র সংবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে বাংলার আকাশ মুক্ত রাখার দৃঢ় অঙ্গীকার বাস্তবায়নে তোমরা সংকল্পবদ্ধ থাকবে। ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ও পরিবর্তনের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর দক্ষতা অর্জনে তোমরা সর্বদা সচেষ্ট থাকবে।

প্রধান্মন্ত্রী বলেন, “বিমান বাহিনীর একাডেমি থেকে তোমরা যে মৌলিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছো, কর্মজীবনে তার যথাযথ অনুশীলন ও প্রয়োগ এবং সততা, একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে তোমাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবে। প্রিয় মাতৃভূমি রক্ষার গুরুদায়িত্ব পালনে আজ থেকে তোমরা অংশীদার। সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয় বঙ্গবন্ধু প্রণীত এই নীতির আলোকে আমরা এগিয়ে যেতে চাই।”

প্রধানমন্ত্রী এ সময় নবীন কর্মকর্তাদের সাফল্য কামনা করে বলেন, “একাডেমির প্রশিক্ষণ আধুনিকায়নে ও ভবিষ্যৎ চাহিদা মেটানোর জন্য নতুন স্থাপনা প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে আমরা সচেষ্ট রয়েছি। এ সব উন্নয়ন কাজ সফল হলে বাংলাদেশ বিমান বাহিনী একাডেমি শুধু দেশেই নয় আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সুনাম বয়ে আনতে সক্ষম হবে।”

বরিশাল ও সিলেটে নতুন দুটি বিমান বাহিনী ঘাঁটি স্থাপনের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমার বিশ্বাস এসব কার্যক্রমের মাধ্যমে বিমান বাহিনী আরও শক্তিশালী হবে এবং এর সক্ষমতা বাড়বে।”

এরপর আজ বিকাল ৩টায় জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে ঈদগাহ মাঠে জনসভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।