পাচঁ মাসে রাজস্ব আদায় ২১ হাজার ৬৪৬ কোটি টাকা

চলতি ২০১৭-১৮ করবর্ষের প্রথম ৫ মাসে ২১ হাজার ৬৪৬ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। যা বিগত করবর্ষের একই সময়ের তুলনায় ১৫ দশমিক ৬০ শতাংশ বেশি। গত করবর্ষের প্রথম ৫ মাসে আয়কর আহরণের পরিমাণ ছিল ১৮ হাজার ৭২৫ কোটি টাকা। জুলাই-নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয়কর আহরণ ছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ভাল করেছে। এনবিআর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

এনবিআর সূত্র জানায়, ব্যক্তি পর্যায়ে আয়কর বিবরণী দাখিলের পরিমাণও প্রথম ৫ মাসে গত বছরের তুলনায় ৩৬ শতাংশ বেড়েছে। এ সময়ে আয়কর বিবরণী দাখিল হয়েছে ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬১৬টি। গত করবর্ষের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ১১ লাখ ৪৪ হাজার ৪৯৭। বর্তমানে দেশে ইলেকট্রনিক আয়কর সনাক্তকরণ নম্বরধারীর
(ইটিআইএন) সংখ্যা ৩২ লাখ ৭১ হাজার।

এ প্রসঙ্গে এনবিআর সদস্য (আয়কর প্রশাসন) মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, কর প্রদানে উদ্বুদ্ধকরণমূলক বিভিন্ন পদক্ষেপ ও তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার এবং করবান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার কারণে করদাতারা আয়কর দেয়ায় আগের থেকে বেশি সাড়া দিচ্ছেন। এর পাশাপাশি আগের তুলনায় কর প্রশাসনের নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।

আয়কর বিবরনী দাখিলের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি আয়কর আহরণের প্রবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তিনি আরও বলেন, করদাতাদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে মাঠ পর্যায়ে হয়রানি বন্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি যোগ্য ও দক্ষ কর্মকর্তাদের যথাপোযুক্ত স্থানে পদায়ন এবং অংশীজনদের মতামতকে অগ্রাধিকার দিয়ে করদাতাদের সঙ্গে কর বিভাগের আস্থার সম্পর্ক তৈরি করা হয়েছে। এসব কারণে আয়কর আহরণ বেড়েছে বলে তিনি মনে করেন।

এনবিআর সূত্র জানায়, ২১ হাজার ৬৪৬ কোটি টাকার আয়করের মধ্যে ৪৫৩ কোটি টাকার ভ্রমণ কর রয়েছে। চলতি করবর্ষের প্রথম ৫ মাসে ইটিআইএনধারীর সংখ্যা ৩২ লাখ ৩৪ হাজার ৬৫৪। গত করবর্ষের একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ২৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৫৩। সুতরাং আলোচ্য সময়ে করদাতার সংখ্যা ৭ লাখ ৯৩ হাজার বা ৩২ দশমিক ৪৭ শতাংশ বেড়েছে।