মুম্বাইয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ১৫

ভারতের মুম্বাইয়ে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড নিহত হয়েছে অন্তত ১৫ জন, যার মধ্যে ১২ জনই নারী। আহতের সংখ্যা ১২। এদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহতদের ভর্তি করা হয়েছে সিয়ন এলাকার কিং এডওয়ার্ড মেমোরিয়াল ও লোকমান্য তিলক মিউনিসিপ্যাল জেনারেল হাসপাতালে।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে মুম্বাইয়ের লোয়ার পার্লের কমলা মিলস চত্ত্বরে চারতলা ভবনের তিনতলায় অবস্থিত ‘ওয়ান এবাভ’ নামে একটি রেস্তোঁরায় এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এরপরই দ্রুত সেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে চালতলা ভবন ও আশপাশের এলাকাগুলোতে। এরপর ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি এসে প্রায় তিন ঘন্টার চেষ্টায় আগুন নেভায়। ওই রেস্তোরাঁর মালিকের বিরুদ্ধে একটি অপরাধমূলক হত্যার মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাত ১২.৩০ মিনিট নাগাদ এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে ওই ‘ওয়ান এবাভ’ রেস্তোঁরায়। সেসময় রাতে ওই রেস্তোঁরাটিতে একটি জন্মদিনের পার্টি চলছিল। আচমকাই ওই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে রেস্তোঁরাটির ভিতরের ছাদটি ‘ফলস রুফ’ হওয়ার কারণে দ্রুত সেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে গোটা ভবনটিতে, প্রায় আধা ঘন্টা ধরে জ্বলতে থাকে আগুন। যে ভবনটিতে আগুন লাগে তার পাশের আরেকটি বহুতল ভবনে টাইমস নাও, মিরর নাও, ইটি নাও এবং জুম টিভি নামে টাইমস নেটওয়ার্ক গ্রুপের একাধিক কার্যলয় ও টিভি৯ মারাঠি নামে আরেকটি টিভি চ্যানেলের কার্যালয় রয়েছে। আগুনের উত্তাপের সম্প্রচারের ডিশ অ্যান্টিনা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার কারণে প্রত্যেকেই তাদের সম্প্রচার বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়।

প্রাথমিক ভাবে শর্ট সার্কিট থেকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও আগুন লাগার প্রকৃত কারণ এখনও জানা যায়নি। তবে সূত্রের খবর, মধ্য মুম্বাইয়ের লোয়ার পার্লের ওই কমপ্লেক্সটিতে প্রায় অর্ধ শতাধিক রেস্তোরাঁ রয়েছে। কিন্তু তার অধিকাংশগুলোতেই অগ্নিনির্বাপকের কোন ব্যবস্থা নেই বলে অভিযোগ।

অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যুর ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।