‘বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের ওপর হামলা চালানো হচ্ছে’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) অনুষ্ঠিতব্য নোয়াখালী জেলার ধর্মপুর, নয়ান্নি ও নোয়াখালী ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে এক ভয়াবহ ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে আওয়ামী দুর্বৃত্তরা। সেখানে চলছে অস্ত্রের মহড়া। গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গত কয়েক দিন যাবৎ আওয়ামী ক্যাডারদের আক্রমণে তছনছ করা হচ্ছে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের নির্বাচনী কার্যালয়গুলো। হামলা চালানো হচ্ছে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকদের ওপর। আওয়ামী সন্ত্রাসীদের এ ধরনের গুন্ডামিতে এলাকার ভোটারদের মনে ব্যাপক ভীতি বিরাজ করছে। সন্ত্রাসীদের হামলায় ইতোমধ্যে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর কর্মী-সমর্থক ও স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা আহত হয়েছেন।

ফখরুল বলেন, ‘হামলায় নিজাম উদ্দিন, জামাল উদ্দিন, জয়নাল আবেদীন, মো. বাবুল, মীর মোহাম্মাদ, মনির আহমেদসহ প্রায় ৫০ জনের অধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।’ বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী সন্ত্রাসীদের এ ধরনের হামলা ও ব্যাপক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনসহ প্রশাসনকে অবহিত করা হলেও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। এসব ন্যাক্কারজনক ঘটনা এবং ঘটনার প্রতিকারে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের নির্বিকার ভূমিকায় আমরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছি।

বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে নিজেদের প্রার্থীকে জোর খাটিয়ে বিজয়ী করার ধারাবাহিক অংশ হিসেবে নোয়াখালী জেলার ৩টি ইউনিয়নের ইউপি নির্বাচনেও সরকার তাদের লালিত সন্ত্রাসীদের দিয়ে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, বর্তমান শাসকগোষ্ঠী মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়ে ভোট ডাকাতির মাধ্যমে নিজেদের প্রার্থীকে জয়ী করতে দলীয় ক্যাডারদের ব্যবহার করছে। আমি সরকারের এ ধরনের ঘৃণ্য পন্থা অবলম্বনের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে নোয়াখালী জেলার ৩টি ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও ভয়ভীতিমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠিত করতে যথাযথ ও কার্যকর ভূমিকা পালনের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।