পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে ফার্মগেটে ডিএনসিসির উচ্ছেদ অভিযান

পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে অনুমতি বহির্ভূত ব্যানার ফেস্টুন, বিলবোর্ড অপসারণে উচ্ছেদ অভিযান ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ফার্মগেট এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম অজিয়র রহমান।

ফার্মগেট আনন্দ সিনেমা হলের সামনে বেলা ১১টা থেকে শুরু হওয়া এ অভিযান দিনব্যাপী চলবে। অভিযানে এখন পর্যন্ত ১ লাখ টাকার বেশি জরিমানা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অজিয়র রহমান। তিনি বলেন, নগরীকে পরিচ্ছন্ন রাখতে এ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। অভিযানে অবৈধ ও অননুমোদিত সাইনবোর্ড, পোস্টার, ফেস্টুন, ওভারহেড সাইনবোর্ড অপসারণ করা হয়েছে সেই সঙ্গে এখন পর্যন্ত এক লাখ টাকার বেশি জরিমানা করা হয়েছে। দিনব্যাপী এ অভিযান চলবে।

অভিযানকালে ক্রাউন স্যানিটারি এন্টারপ্রাইজের অনুমোদনহীন সাইনবোর্ড থাকায় পাঁচ হাজার টাকা, আশিক স্যানেটারিকে ৩০ হাজার, বাথ সলিউশনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া ন্যাশনাল হার্ডওয়ারসহ আরও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদনহীন সাইনবোর্ড রাখার কারণে পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

এসব প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করা বিষয়ে অজিয়র রহমান বলেন, ট্রেড লাইন্সেস অনুযায়ী একটি প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড, ব্যানারের জন্যও নির্দিষ্ট ফি দিয়ে অনুমতি নিতে হয়। যারা অনুমোদন বিহীন ব্যানার সাইনবোর্ড টাঙিয়েছে তাদের জরিমানা করা হয়েছে। অন্যদিকে, গ্রিন সুপার মার্কেটে অভিযানকালে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিকরা অভিযোগ জানিয়ে বলছেন, তাদের আগে থেকে কোনো নোটিশ করা হয়নি।

এই মার্কেটের ব্যবসায়ী ইসমাইল হোসেন বলেন, এসব সরিয়ে নিতে আমাদের আগে থেকে সতর্ক করা হয়নি। হঠাৎ করেই তারা এসে অভিযান চালাচ্ছে। আগে থেকে নোটিশ বা সতর্ক করলে আমরা এসব সরিয়ে নিতাম। কিন্তু হঠাৎ করেই তারা এসে আমাদের জরিমানা করছেন।

এই অভিযোগ বিষয়ে অভিযানে অংশ নেয়া সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, ব্যবসায়ীদের এসব ব্যানার, সাইনবোর্ড সরিয়ে নিতে একাধিকবার বলা হয়েছে। তাছাড়া একটি সাইনবোর্ডের অনুমতি নিয়ে তারা দুই বা ততোধিক সাইনবোর্ড ব্যানার লাগিয়েছে, যা শহরকে অপরিচ্ছন্ন করছে। সে কারণেই তাদের জরিমানা করা হয়েছে।

এর আগে একই এলাকায় ২৬ ডিসেম্বর অবৈধ ও অননুমোদিত সাইনবোর্ড, পোস্টার, ফেস্টুন, ওভারহেড সাইনবোর্ড অপসারণ না করায় ৬টি কোচিং সেন্টারের লাইসেন্স বাতিল করে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)।