‘খালেদার আদালতে হাজির, বিচার করবে বাংলার মানুষ’

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে পঞ্চম দিনের মতো যুক্তি উপস্থাপন করেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। যুক্তি উপস্থাপনে খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া তিন বারের প্রধানমন্ত্রী ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের স্ত্রী। তাকে (খালেদা জিয়া) এভাবে আদালতে হাজির করার বিচার বাংলার মানুষ করবেন।’

যুক্তি উপস্থাপন শুরু হওয়ার আগে খালেদা জিয়া বেলা ১১টা ৩২ মিনিটে বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে উপস্থিত হন এবং জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাষ্ট  দুর্নীতির দুই মামলায় হাজিরা দেন। পরে বেলা ১১টা ৩৭ মিনিটে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পঞ্চম দিনের মতো খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। যুক্তি উপস্থাপনে তিনি এসব কথা বলেন।

খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, খালেদাকে ২০০৬ সাল থেকে এ মামলায় ধাওয়া করে বেড়ানো হচ্ছে। তিনি টাকা আত্মসাৎ করেননি। এতিমের টাকা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মামলাটি রাজনৈতিক গন্ধ ও কালিমাযুক্ত। এ ধরনের মামলা রাজনৈতিক অশুভ ইঙ্গিত ছাড়া হতে পারে না। অ্যাকাউন্ট ফরম থেকে শুরু করে কোথাও খালেদার কোনো স্বাক্ষর নেই। আছে শুধু ঘষামাজা। আর ঘষামাজার উপর নির্ভর করে কোনো ক্রিমিনাল মামলায় সাজা দেওয়া যায় না।

খন্দকার মাহবুব হোসেন আরও বলেন, জিয়াউর রহমান আরাফাত ময়দানে নিম গাছ লাগিয়েছেন। তার আত্মার মাগফেরাতের জন্য বিদেশ থেকে এ টাকা পাঠানো হয়েছে। আর এ টাকায় কোনো শর্ত ছিল না। বিদেশ থেকে যে টাকা পাঠিয়েছেন তার কোনো হুদিস নেই। খালেদা জিয়ার পক্ষে খন্দকার মাহবুব হোসেনের যুক্তি উপস্থাপন শেষে আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন।

গত ২৭ ডিসেম্বর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান। তার যুক্তি উপস্থাপন শেষে খন্দকার মাহবুব হোসেন খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন। এ দিন তার যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আজ (বৃহস্পতিবার) দিন ধার্য করেন। এর আগে ২৬ ডিসেম্বর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান। এ দিন তার যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন।

গত ১৯ ডিসেম্বর এ মামলার যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয়। রাষ্ট্রপক্ষ ১৯ ডিসেম্বর তাদের যুক্তি উপস্থাপন শেষ করে খালেদার সর্বোচ্চ শাস্তির আবেদন করেন। ২০ ডিসেম্বর খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন তার আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান। এ দিন শেষ না হওয়ায় ২১ ডিসেম্বর পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের দিন ধার্য করেন আদালত। ২১ ডিসেম্বর খালেদার পক্ষে যুক্তি উপস্থান শেষ না হওয়ায় ২৬, ২৭ ও ২৮ ডিসেম্বর পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য করেন আদালত। অপরদিকে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় যুক্তি উপস্থাপনের জন্য এই দিন ধার্য রয়েছে।