আরও তিন দিন সময় পেলেন খালেদা

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আগামী ২, ৩ ও ৪ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার খালেদার পক্ষে পঞ্চম দিনের মতো যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবীরা। এদিন যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় ঢাকার বকশীবাজারের আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামান পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

এর আগে গতকাল বুধবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়ার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী আব্দুর রেজাক খান ও খন্দকার মাহবুব হোসেন। যুক্তি উপস্থাপনের সময় তথ্য-প্রমাণ ও সাক্ষীর মাধ্যমে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছে এমন দাবি করে মামলাটি থেকে খালেদা জিয়ার খালাস চান রেজাক।

রেজাক খানের যুক্তি উপস্থাপন শেষে খন্দকার মাহবুব হোসেন যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন। কিন্তু গতকাল বুধবার তার যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় পরবর্তী যুক্তি উপস্থাপনের জন্য আদালত আজকের দিন ধার্য করেন। কিন্তু আজও যুক্তি উপস্থাপন শেষ না হওয়ায় আদালত ২, ৩ ও ৪ ডিসেম্বর নতুন তারিখ ধার্য করেন। অপরদিকে একই আদালতে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় যুক্তি উপস্থাপনের জন্যও একই দিন ধার্য করেন।

এতিমদের জন্য বিদেশ থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ মামলাটি করে দুদক। ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলাটি করা হয়। ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট দুদক আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে।

অন্যদিকে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় মামলা করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক।