নিষেধাজ্ঞা শেষে যন্ত্রণার গল্প নিয়ে নির্মাতা শামীম আহমেদ রনি

নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ ইং। এরই মধ্যে নতুন চলচ্চিত্র নিয়ে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন রনি। নতুন ছবির চরিত্রের নামও ঠিক করে ফেলেছেন তিনি।

চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির দেয়া ৭ মাসের নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা শেষ করে অবশেষে আবার নতুন চলচ্চিত্র উপহার দেবেন নির্মাতা শামীম আহমেদ রনি। ছবির চরিত্রের নামও ঠিক করা হয়েছে বলে জানা যায়। ‘মায়া’ ও ‘মানছু’। তবে ছবিতে কারা অভিনয় করবেন তা এখনো জানাননি রনি। তার ফেসবুক ওয়ালে শুধু ছবির চরিত্রগুলোকেই নিয়েই ভাবনা।

মায়া চরিত্র নিয়ে শামীম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘যে মায়াবী মুখটা আমি পর্দায় দেখাতে চাই কে হবে সেই মায়া? যার মুখটা দেখলেই সবার মনের ভিতর মায়া জন্মাবে। নায়িকা না, চাই অভিনেত্রী।’

ছবির গল্প নিয়ে লিখেছেন, ‘এ গল্প আমার গল্প, এ গল্প আপনার গল্প, এ গল্প আমাদের গল্প। এ গল্প মায়া’র গল্প। আমার এবারের গল্প প্রেমের না। প্রতিশোধের না, নাটকীয়তার না, এ গল্প শুধুই-যন্ত্রণার। পৃথিবীতে কে কাহার, কেই বা মায়ার? ‘মায়া’ এক জীবনের শুধুই কি ‘মানছু’র জীবনের ছায়া, নাকি ‘মায়া’ এই নির্লজ্জ সমাজের কোটি আমজনতার প্রতিচ্ছবি?’

তিনি আরেকটি পোস্টে লিখেছেন, ‘তেতুল গাছটায় বহু বছর পরেও সেই ‘মায়া+মানছু’ লেখাটা দেখা যায়। প্রতি পূর্ণিমার রাতে সেখানে জোনাকী আর জোক’রা দল বেঁধে মায়া আর মানছু’র স্মরণে আলো আর রক্তের হলি খেলে। আজও মায়ানগর জুড়ে ‘মায়া’ আর ‘মানছু’র আর্তনাদের শব্দ শোনা যায়…। গভীর রাতে এখনো ঝরণার কলকল শব্দের আড়ালে কান পাতলেই ‘মায়া’র সেই ভুবনজয়ী হাসির শব্দ শোনা যায়। হাওয়ায় কান পাতলে এখনো ‘মানছু’র চিৎকার ভেসে আসে। আর একটু খেয়াল করলেই শোনা যায়। কারা যেন কোরাস করে বলছে। ‘মায়া’…’মায়’…’মায়া…। মায়া’র জীবনের গল্প বুনছি… একের পর এক দৃশ্যের সূতোয়…।

 

উল্লেখ্য, শামীম আহমেদ রনির ‘মেন্টাল’, ‘বসগিরি’, ‘ধ্যাততেরিকি’ ও ‘রংবাজ’- সবকটি ছবিই বেশ আলোচিত হয়েছে।