কাজের ফাঁকে নাতির সঙ্গে খুনসুটিতে গণশিক্ষামন্ত্রী

অফিসে কাজের ফাঁকে নাতির সঙ্গে খুনসুটিতে মেতেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সচিবালয়ে মন্ত্রীর কক্ষে গিয়ে নাতি (মেয়ের ছেলে) আফিফ ইবাদুল্লাহ হাসানের সঙ্গে মধুর দুষ্টুমি করতে দেখা যায়।

আফিফ সানবিম স্কুলের নার্সারির ছাত্র। মন্ত্রী নানা তার নাতিকে নিয়ে এসেছেন অফিসে। এসেই চঞ্চল আফিফ নানান কর্মকাণ্ডে মন্ত্রীর সাজানো কক্ষটি সরগরম করে রাখে। কখনও সে কক্ষের মধ্যে সশব্দে চেয়ার ঠেলছে। কখন লাফ দিয়ে ওঠে যাচ্ছে নানার (মোস্তাফিজুর রহমান) কোলে। কখনও নানার কানে কানে কী যেন বলে আবার এক ঝটকায় নেমে পড়ছে। কখন ফাইল ধরে টান দিচ্ছে ছোট্ট আফিফ।

মন্ত্রী ফাঁকে ফাঁকে আগত দর্শনার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। সমস্যা সমাধান করেন। আবার কখনও স্নেহে বুকে টেনে নিয়ে আদরের নাতির কাছে জানতে চান- বলতো তোমার নানার নাম কী? নাতি দ্বিধাহীনভাবে বলে ফেলে, ‘মোস্তাফিজুর রহমান।’ আবার জানতে চান, বলতো নানা কী করে। আবার নাতি বলে, ‘মন্ত্রী’।

দেয়ালে টাঙানো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দেখিয়ে দুই বাহুতে বন্দি ছোট্ট আফিফের কাছে মোস্তাফিজুর রহমান জানতে চান- বলত নানা এরা কারা। আফিফ ঠিক ঠিক নাম বলে দেয়। নানা আদরের চুমু খান নাতির কপালে। নানার স্নেহে চঞ্চল নাতিকে বুকের কাছে রেখে মোস্তাফিজুর রহমানের দাফতরিক কাজ এগিয়ে নেন।

মোস্তাফিজুর রহমান দিনাজপুর-৫ (ফুলবাড়ি-পার্বতীপুর) আসনের সংসদ সদস্য। তিনি ২০০৯ সালে পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। পরে ভূমি প্রতিমন্ত্রীরও দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমান সরকারের সময়ে তিনি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পান।