আদালতে খালেদা জিয়ার উপস্থিতি, যুক্তিতর্ক শুরু

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে তৃতীয় দিনের মতো যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে এই যুক্তিতর্ক শুরু হয়। এর কয়েক মিনিট আগে তিনি রাজধানীর বকশিবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামানের আদালতে পৌঁছান।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুর রেজ্জাক খান যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করছেন। তিনি দুদকের ১৩তম সাক্ষীর সাক্ষ্য খণ্ডানোর জন্য যুক্তি তুলে তার যুক্তিতর্ক শুরু করেন। এ সময় তিনি সোনালী ব্যাংকের কোন ডকুমেন্ট আদালতে প্রদর্শিত হয়নি জানিয়ে কোনো সাক্ষী মূল ডকুমেন্টগুলো দেখেছেন এমন কোনো সাক্ষ্য দেয়নি মর্মে আদালতকে অবহিত করেন।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপি নেতাদের মধ্যে আদালতে উপস্থিত আছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, কেন্দ্রীয় নেতা নাজিমুদ্দিন আলম, আব্দুস সালাম, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, খায়রুল কবীর খোকন, আফরোজা আব্বাস, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু প্রমুখ।

আইনজীবীদের মধ্যে উপস্থিত আছেন খন্দকার মাহবুব হোসেন, সুপ্রিমকোর্ট বারের সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নাল আবেদীন, সেক্রেটারি মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদার প্রমুখ। দুদকের পক্ষে উপস্থিত আছেন অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল, মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, অ্যাডভোকেট মীর আব্দুস সালাম, অ্যাডভোকেট আমিন উদ্দিন মানিক প্রমুখ।

এদিকে খালেদা জিয়ার আদালতে যাওয়াকে কেন্দ্র করে সড়কজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে পুলিশ। সম্প্রতি খালেদা জিয়ার আসা-যাওয়ার পথে পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা মাথায় রেখেই পুলিশ সদস্যদের মধ্যে বাড়তি সতর্কাবস্থা লক্ষ্য করা গেছে।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ০৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে এ মামলা দায়ের করা হয়।

এছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে দুর্নীতির অভিযোগে ২০০৮ সালের ০৩ জুলাই দুদক রমনা থানায় মামলা করে। এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয় এই মামলায়।