শিক্ষকদের আন্দোলন, শহীদ মিনারে ঝাঁঝালো দুর্গন্ধ

রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় গেলেই প্রস্রাবের ঝাঁঝালো দুর্গন্ধ নাকে লাগে। ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের স্মৃতির মিনারে এখন টেকা দায়। প্রধান শিক্ষকদের এক ধাপ নিচে বেতন নির্ধারণের এক দফা দাবিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে গত শনিবার থেকে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা। দাবি আদায় ছাড়া ঘরে ফিরে যাবেন না বলে জানিয়েছেন তারা।

শেপাশে কোনো টয়লেট না থাকায় অনশনে আগতরা শহীদ মিনার চত্বরের পশ্চিম পাশে খোলা জায়গায় প্রস্রাব করছেন। বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রস্রাবে স্থানটি প্রায় ভেসে গেছে। আর এর দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে পুরো শহীদ মিনার এলাকায়। এ ছাড়া সেখানে অনেকে পায়খানা করেও রেখেছেন।

সোমবার সকালের দিকে গিয়ে দেখা গেছে, শহীদ মিনারের পূর্বপাশে সারি বেধে দাঁড়িয়ে লোকজন প্রস্রাব করছেন। পাশে থাকা হযরত তেলশাহ (র.) মাজারের পরিচ্ছন্নতার দায়িত্বে থাকা নাসরিন লোকজনকে থামাতে থামাতে ক্লান্ত হয়ে গেছেন। তিনি বলেন, অনেকে মাজারের সীমানার মধ্যে এসে প্রসাব করছেন। বারবার নিষেধ করে লোকজনকে থামানো যাচ্ছে না। দুর্গন্ধে মাজারে টিকতে পারছি না। কোনোদিন এমন অবস্থা দেখি নাই। এখানে প্রস্রাব করার কারণ জানতে চাইলে অনশনে আসা একজন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘আশেপাশে কোনো টয়লেট নেই। কোথায় প্রস্রাব করব বলুন।’

শনিবার সকাল ১০টায় বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক মহাজোটের উদ্যাগে শিক্ষকদের অনশন কর্মসূচি শুরু হয়। মহাজোটের অধীনে সহকারী শিক্ষকদের ১০টি সংগঠনের হাজার হাজার শিক্ষক দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যোগ দিয়েছেন অনশন কর্মসূচিতে। শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে পাটি, পত্রিকা, পলিথিন বিছিয়ে পৌষের শীতের দুটি রাত পার করেছেন তারা।