প্রধানমন্ত্রীকে খোলা চিঠি দিলেন বিমান ক্যাজুয়াল শ্রমিকবৃন্দ

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী,
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সু-যোগ্য কন্যা, বিশ্বপরিচিত আপসহীন নেত্রী, বাংলার অহংকার, ১৬ কোটি মানুষের প্রিয় নেত্রী, বাংলাদেশের উন্নয়নে অবিস্মরনীয় কৃতিত্বের অধিকারি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে পত্রের শুরুতে জানাই সালাম ও আন্তরিক শুভেচ্ছা। আজ দুঃখ ও ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আপনার সমীপে কিছু বলতে চাই।

আমরা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এর দৈনিক ভিত্তিক ক্যাজুয়াল বেতন বিভাগ (পে-গ্রুপ) ১ ও ২ শ্রমিকবৃন্দ। আমরা নিরুপায় হয়ে আজ আপনার নিকট দারস্থ হয়েছি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিষ্ঠিত স্বপ্নের বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আজ সুনাম সাথে নিয়ে পথ অতিক্রম করছে। কিন্তু দীর্ঘ ০৫-৩০ বছর যাবৎ আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স লিঃ এ স্থায়ী কাজে ক্যাজুয়াল শ্রমিক হিসেবে কর্মরত আছি বিমান কর্তৃপক্ষ ও মাননীয় বিমান মন্ত্রী সহ বিভন্ন শ্রমিক সংগঠনের বার বার নানান প্রতিশ্রুতির বানীতে আশাম্বিত হয়ে। সে অপেক্ষায় প্রহর গুনে সার্টিফিকেটের বয়সসীমার মেয়াদ শেষ। চাকুরী পরিবর্তন করে অন্য পেশায় যাওয়ার রাস্তা ও খোলা নাই। নবীন ক্যাজুয়ালদের এমন সর্বনাশ করার সব আয়োজন করে রেখেছে বিমান।

উল্লেখ্য যে, বিমানে সবচেয়ে কঠোর পরিশ্রম ও কষ্টদায়ক কাজগুলো রোদ-বৃষ্টি-ঝড়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে নিরলস ভাবে বিমানের উন্নতিতে এখনও কাজ করে যাচ্ছি। বিশ্বাস করি বিমানের সার্বিক উন্নয়নে আমরাও সম অংশীদার। কত ক্যাজুয়াল শ্রমিক ভাই স্থায়ী হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে মৃত্যুবরন করেছে। প্রতিশ্রুতি মোতাবেক চাকুরী স্থায়ী হওয়ার আশায় এখনও মা-বাবা, ভাই-বোন ও স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।

আমরা কার কাছে যাব? কার কাছে বলব? কে শুনবে আমাদের কথা? আমরা নিরুপায়! তাই বাধ্য হয়ে আপনার সমীপে আমাদের আকুল আবেদন। জানি বঙ্গবন্ধু কন্যা কখনো অনিয়মকে প্রশ্রয় দেননি, দিবেনও না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যাদের কেউ নেই তাদের আল্লাহ আছেন, উছিলা হিসাবে আপনি আছেন। আমরা আপনার সন্তান সমতুল্য। বঞ্চিত এই ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক ও তাদের পরিবার আপনার মুখের দিকে তাকিয়ে আছে। এই ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক ও তাদের পরিবারের এখন আপনিই একমাত্র ভরসা। আমরা আপনার দুয়ারে হাত পেতেছি। আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক, দীঘদিন যাবৎ বিমানের জন্য স্থায়ী কাজে ক্যাজুয়াল হয়ে শ্রম দিয়েছি। আমাদের ন্যায্য অধিকারের জন্য আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এই সোনার বাংলায় আমরা আমাদের মৌলিক অধিকার গুলো চাই। যা পাওয়ার স্বপ্ন আপনি আমাদের দেখিয়েছেন। বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের দ্বায়িত্ব আপনি নিয়েছেন তাহলে আমরা কেন ২,০০০ ক্যাজুয়াল শ্রমিক বঞ্চিত হব? আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনায় বিমান ক্যাজুয়াল শ্রমিকবৃন্দ, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

তানজিন তনু, নিজস্ব প্রতিনিধি