‘প্যারেড গ্রাউন্ড-বঙ্গভবনে বিএনপিকে দাওয়াত দেওয়া হয় না’

স্বাধীনতা ও বিজয় দিবসে বিএনপিকে প্যারেড গ্রাউন্ড এবং বঙ্গভবনে দাওয়াত দেওয়া হয় না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। রবিবার (২৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলিস্তানে মহানগর নাট্যমঞ্চে এক সমাবেশে তিনি এ অভিযোগ করেন। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা দলের আয়োজনে সমাবেশটি অনুষ্ঠিত হয়।

খালেদা জিয়া বলেন, ‘এখন ২৬ মার্চ এবং ১৬ ডিসেম্বর যা-ই করা হোক না কেন, আমাদের কোনও দাওয়াত হয় না। প্যারেড গ্রাউন্ডে আমরা দাওয়াত পাই না; বঙ্গভবনে দাওয়াত পাই না। কাজেই আমরা সবদিক থেকে বঞ্চিত হয়ে যাই। এই হলো আজকের অবস্থা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি শুনেছি মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে ১৬ ডিসেম্বর বঙ্গভবনে দাওয়াত করা হয়েছিল। কিন্তু তাকে ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। দাওয়াত দিলো কিন্তু ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হলো না। একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, রণাঙ্গনে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা– তাকে ঢুকতে দেওয়া হলো না। এই হলো মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আওয়ামী লীগের সম্মান।’

এখন সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধাদের কোনও প্রোগ্রামে দাওয়াত করা হয় না দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘যারা যুদ্ধ করে এই দেশ স্বাধীন করেছিল তাদের লক্ষ্য কী ছিল– পাকিস্তানিরা আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছিল, নির্বাচন হবে কিন্তু ক্ষমতা হস্তান্তর করবে না, তা থেকে মুক্তি। আজকে আমরা ঠিক দেখছি একই অবস্থায় পাকিস্তানি কায়দায় আওয়ামী লীগ চলছে।’ দেশের মানুষ পরিবর্তন চায় দাবি করে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আওয়ামী লীগ শুধু রাজনৈতিক নেতাদের ওপর অত্যাচার করছে না, তারা সাধারণ মানুষের ওপরও অত্যাচার করছে। এজন্য মানুষ এ সরকারের পরিবর্তন চায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘দেশকে আওয়ামী লীগের শৃঙ্খলমুক্ত হতে হবে। এজন্য আরেকবার জেগে উঠতে হবে। সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আওয়ামী লীগ, শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখে নির্বাচন হতে পারে না। কারণ শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। আওয়ামী লীগ জনগণকে ভোটকেন্দ্র আসতে দেয় না। নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে। সংসদ ভেঙে দিতে হবে।’

বিএনপির মাধ্যমেই দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র এসেছিল উল্লেখ করে দলটির চেয়ারপারসন বলেন, ‘আবারও বিএনপি ক্ষমতায় এলে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা অশান্তি চাই না, নির্বাচন চাই। জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় যেতে চাই। আমরা বিনা ভোটে নির্বাচিত হতে চাই না।’

সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ, মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম বক্তব্য দেন।