‘গরু জবাই করলেই মেরে ফেলা হবে’

বিতর্কিত মন্তব্যে বরাবরই খবরের শিরোনামে থাকেন ভারত রাজস্থানের বিজেপি বিধায়ক জ্ঞান দেব আহুজা। সোমবার আরেকটি মন্তব্য করে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে তিনি। রাজস্থানের রামগড়ের এই বিজেপি বিধায়ক এক প্রকার হুমকি দিয়ে বলেছেন, ‘গরু জবাই বা পাচার করলেই মেরে ফেলা হবে’।

আলওয়ার জেলার রামগড় এলাকায় তথাকথিত গোরক্ষকদের হাতে ৪৬ বছর বয়স্ক সন্দেহভাজন এক গরু পাচারকারীকে প্রচণ্ড মারধরের ঘটনার পরই এই মন্তব্য করেন আহুজা। গত শনিবার রামগড়ে গরু পাচারের অভিযোগে জাকির খান নামে এক সংখ্যালঘু ব্যক্তিকে গাড়ি থেকে নামিয়ে প্রচণ্ড মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।

জানা যায়, গরু বহনকারী জাকিরের ট্রাকটিতে পুলিশ থামানোর নির্দেশ দিলেও পুলিশের ব্যারিকেড লংঘন করেই ট্রাকটি সামনের দিকে যেতে থাকে। অভিযোগ ট্রাকটির ভিতরে থাকা কয়েকজন ব্যক্তি পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিও ছোঁড়ে। এরপরই গ্রামবাসীরা ওই ট্রাকটিতে দাঁড় করায় এবং জাকিরকে ট্রাক থেকে বের করে মারধর করা হয়। যদিও ট্রাকের ভিতর থাকা অন্য তিনজন পালিয়ে যায়।

ওই ঘটনার প্রেক্ষিতেই বিজেপি বিধায়ক জ্ঞান দেব আহুজা বলেন, ‘আমি পরিষ্কার করে বলে দিতে চাই যে, আপনি যদি গরু পাচার করেন বা জবাই করেন তবে ওখানেই মরতে হবে। গরু আমাদের মা’। জাকির খানকে মারধর করার বিষয়টিকেও উড়িয়ে দিয়ে ওই বিজেপি বিধায়ক জানান, ‘ওকে (জাকির) গ্রামবাসীরা মারধর করেনি, উনি বানিয়ে বলছেন। গ্রামবাসীরা ট্রাকটিকে ধাওয়া করলে ট্রাকটি উল্টে যায়, তাতেই জাকির আহত হয়েছেন’।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতেই জওহরলাল নেহেরু ইউনিভারসিটি ক্যাম্পাসকে যৌনতা ও মাদকের ঘাঁটি বলে অভিহিত করার পাশাপাশি প্রতিদিন ওই ক্যাম্পাসের ভিতর থেকে ৫০ হাজার পিস হাড়ের টুকরা, ৩ হাজার পিস ব্যবহৃত কনডম, ৫০০ পিস গর্ভপাতের ইঞ্জেকশন এবং দুই হাজার মদের বোতল পাওয়া যায় বলেও দাবি করেন তিনি। গণমাধ্যমগুলিতে সেই খবর আসার পর তা নিয়েও কম বিতর্ক হয়নি।