আমরণ অনশনে দুই দিনে পাঁচ শিক্ষক অসুস্থ

সহকারী প্রাথমিক শিক্ষকদের আমরণ অনশনের দুই দিনে পাঁচজন শিক্ষক গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। বর্তমানে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

অসুস্থ শিক্ষকরা হচ্ছেন ময়মনসিংহ ঈশ্বরগঞ্জের বিলবাইন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মো. জাহাঙ্গীর আলম, একই স্কুলের সহকারী শিক্ষক আজমল হোসেন, নোয়াখালীর চাটখিলের কামালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুল মান্নান, নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের দক্ষিণ মুছাপুর কাউয়ুমিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মো. হক মিয়া, একই উপজেলার আল মোবারক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম।

বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক অনলাইন সমিতির সভাপতি কাজী আবু নাসের আজাদ বলেন, প্রধান শিক্ষকদের ১০তম গ্রেডের পরের গ্রেডে আমাদের মর্যাদা দিতে হবে। এই এক দফা দাবিতে শনিবার থেকে আমরা ঘর ছেড়ে আমরণ অনশনে নেমেছি। এ দাবিতে দেশের বিভিন্ন জেলার শিক্ষকরা অনশনে যুক্ত হয়েছেন। দাবি আদায় ছাড়া তারা ঘরে ফিরে যাবেন না বলেও জানান।

উল্লেখ্য, প্রধান শিক্ষকদের বেতন স্কেল ১০ম গ্রেডে উন্নীত হলে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের গ্রেড চার ধাপ নিচে নেমে যাবে। তাই প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকদের পরের গ্রেডে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল ও মর্যাদা নির্ধারণে আন্দোলনে নেমেছেন সরকারি প্রাথমিক স্কুলের সহকারী শিক্ষকরা। শনিবার থেকে রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সমাবেত হয়ে আন্দোলনে যুক্ত হয়েছেন তারা। এই দাবিতে আজও আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে।