‘আপনারা কি আরেকটি নির্বাচনের নীলনকশা প্রস্তুত করে রেখেছেন’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ‘আওয়ামী লীগই আগামীতে ক্ষমতায় আসবে’ এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘তাহলে কী আপনারা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচনের মতো আরেকটি নির্বাচনের নীলনকশা প্রস্তুত করে রেখেছেন?’ শনিবার নয়াপল্টন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এই মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন- তার দলই আগামীতে ক্ষমতায় আসবে। তার উদ্দেশ্যে বলতে চাই-তাহলে কি আপনারা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচনের মতো আরেকটি নির্বাচনের নীলনকশা প্রস্তুত করে রেখেছেন? ভোটারবিহীন নির্বাচনে এতটাই মজা পেয়েছেন যে, তারা সেই অবৈধ পথ ছাড়তে চাচ্ছেন না। ওবায়দুল কাদের সাহেবের এই বক্তব্য আগামী নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা ও ষড়যন্ত্রের ক্ষণে ক্ষণে একটা নৈরাজ্যের কালো রাতের আভাস মেলে।’

আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে রিজভী বলেন, ‘এবারেই দুঃশাসনের ঘন অন্ধকারের অবসান ঘটবে। মানুষের ঘৃণা-ধিক্কারে অবৈধ ক্ষমতাসীনরা আর টিকে থাকতে পারবে না। ভোটারবিহীন নির্বাচনের স্বপ্ন আর পূরণ হবে না। বিভীষিকাময় রক্তাক্ত প্রান্তর সৃষ্টি করে আর প্রধানমন্ত্রিত্ব করা যাবে না।’

এসময় তিনি সম্প্রতি ১৯৬ জন কর্মকর্তাকে যুগ্ম-সচিব হিসেবে পদোন্নতি দেয়ার বিষয়েও কথা বলেন। রিজভী বলেন, ‘বৃহস্পতিবার গভীর রাতে ১৯৬ কর্মকর্তার যুগ্ম-সচিব পদে পদোন্নতি সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়, যা রহস্যজনক এবং সর্বমহলে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘এসএসবির ফিটলিস্ট অনুযায়ী অনেক যোগ্য ও উপযুক্ত কর্মকর্তাকেও পদোন্নতি দেয়া হয়নি। এ ছাড়া আরও বেশ কিছু কর্মকর্তার নাম ফিটলিস্টভুক্ত করা হয়নি বলেও অভিযোগ উঠেছে।’

রিজভী বলেন, ‘বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার দলীয়করণের মাধ্যমে গোটা প্রশাসনকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছে। বারবার যোগ্য ও মেধাবী কর্মকর্তাদের পদোন্নতি থেকে বঞ্চিত করা, অযোগ্য দলীয় লোকদের প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় বসিয়ে রাখা, দলীয় লোকদের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া এবং পদের তিন গুণের বেশি পদোন্নতি দিয়ে প্রশাসনের ভারসাম্য ভেঙে ফেলা হয়েছে। বারবার পদোন্নতি বঞ্চিত হয়ে যোগ্য কর্মকর্তারা হতাশা থেকে বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা আত্মহত্যাও করেছেন, যা জাতির জন্য খুবই লজ্জাকর।’

‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার কারণে নিখোঁজ ব্যক্তিরা ফিরে আসছেন’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীদের বাইরেও সাবেক সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা, আইনজীবী, রাষ্ট্রদূত, শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী যারা গুম হয়েছেন তাদের পরিবারও নিখোঁজ স্বজনদের অপেক্ষায় আছে। তাদেরকেও ফিরিয়ে দিন।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, হাবিব উন নবী খান সোহেল, সানাউল্লাহ মিয়া, আবদুস সালাম আজাদ, আমিনুল ইসলাম, কৃষিবিদ শামসুল আলম তোফা প্রমুখ।