‘জনগণের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হলে সত্যিকার অর্থে দেশেরই উন্নয়ন হবে’

নিজেকে জনগণের সেবক উল্লেখ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তাদের টাকায় নিই, তাদের টাকায় চলি। তাই তাদের কতটুকু সেবা দিতে পারলাম সেটাই ভাবি। রাজধানীর শাহবাগে বিসিএস প্রশাসন একাডেমিতে ১০২ ও ১০৩ তম আইন ও প্রশাসন কোর্সের সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে ৭০ জন বিসিএস ক্যাডারের মাঝে সনদ বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া এ উপলক্ষে প্রকাশিত স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করেন তিনি।

নবীন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের পাশে থেকে তাদের আস্থা অর্জন করতে হবে। জনগণকে সেবা দেয়া এবং তাদের জীবন সুন্দর করার দিকে ‍দৃষ্টি দিতে হবে। প্রশাসনে উদ্ভাবনী ও জনগণকে সেবা দেয়ার চিন্তা থাকতে হবে। শেখ হাসিনা আরও বলেন, তৃণমূলের মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হলে সত্যিকার অর্থে দেশেরই উন্নয়ন হবে। যারা তৃণমূলে কাজ করতে যাবেন, এই বিষয়টি তাদের মনে রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, আজ সারাবিশ্বে আমাদের কেউ দরিদ্র দেশ বলে করুণা করে না, ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখে না, ঝড়-বৃষ্টির দেশ ও সাহায্য চাইবার দেশ হিসেবে কেউ দেখে না। বাংলাদেশকে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবেই মনে করে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদান স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজ যদি দেশ স্বাধীন না হতো, যারা বড় বড় পদে আছেন, তারা কি এখানে থাকতে পারতেন? দেশ স্বাধীন হয়েছে বলেই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এসেছে, আপনারা বড় পদে চাকরি করতে পারছেন। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে দেশকে উন্নত করতে ১০ বছরও সময় লাগতো না। অথচ ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট তাকে হত্যা করে দেশ পিছিয়ে দেয়া হয়।

সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ ও তার সুফল তুলে ধরে তিনি বলেন, যারা স্বাধীনতা চায়নি তারা ক্ষমতায় আসলে দেশ উন্নত হবে কিভাবে? ২১ বছর পর ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশকে উন্নত করার ঘোষণা দিয়েছিলাম। মাঝে একটি ছেদের পর ২০০৯ সালে ক্ষমতায় এসে আবার জনগণের সেবক হিসেবে কাজ শুরু করি। ২০১৪ সালে শত প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে ক্ষমতায় আসার ফলেই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখা সম্ভব হয়েছে।