‘একজনের দায় পুরো কমিউনিটির হতে পারে না’

নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনে বোমা হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বাংলাদেশিরা। মঙ্গলবার বিকালে এর বিরুদ্ধে মিছিল বের করারও ঘোষণা দিয়েছেন তারা। তারা জানিয়েছেন, একজন নির্দিষ্ট ব্যক্তির কর্মকাণ্ডের দায় পুরো কমিউনিটির হতে পারে না।

সোমবার (১১ ডিসেম্বর) সকালে টাইমস স্কয়ারের কাছে পোর্ট অথরিটি বাস টার্মিনালে বিস্ফোরণ ঘটে। এর সঙ্গে আকায়েদ উল্লাহ নামে এক বাংলাদেশি যুবকের সংশ্লিষ্টতা পায় পুলিশ। এই হামলায় ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আবারও আলোচনায় আসলো। সেই নিষেধাজ্ঞা অনুযায়ী নিকটাত্মীয় ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রে অন্য কোনও দেশের নাগরিক প্রবেশ করতে পারবে না। ট্রাম্প বলেন, আজকের সন্দেহভাজন হামলাকারী দূরের আত্মীয়ের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করেছে যেটা আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার পরিপন্থী। আমাদের অবশ্যই্ এই অভিবাসন আইন থেকে বের হয়ে আসতে হবে। কারণ এটা খুবই বিপদজনক।’

সন্দেহভাজন হামলাকারী আকায়েদ উল্লাহর বাড়ি বাংলাদেশের চট্টগ্রামে। ২০১১ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে যান। বিস্ফোরণে তার শরীর পুড়ে যাওয়ার পাশাপাশি জখম হয়েছে। এখন তিনি হাসপাতালে রয়েছেন।পুলিশ জানিয়েছে, সন্দেহভাজন আকায়েদ উল্লাহর শরীরে একটি পাইপ বোমা বাঁধা ছিল। মেট্রো স্টেশনে থাকা অবস্থায় কোথাও আঘাত হানার আগেই বোমাটি তার শরীরেই বিস্ফোরিত হয়।

নিউ ইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিটি এই হামলার নিন্দা জানিয়েছেন। তারা জানান, একজন নির্দিষ্ট ব্যক্তির কারণে পুরো শান্তি প্রিয় সম্প্রদায় দায়ী হতে পারে না। সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশি আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশন বাপা ও অন্যান্য সংগঠনগুলো প্রবাসীদের আরও সতর্ক থাকার আহ্বান জানান। সংগঠনটির মহাসচিব হুমায়ুন কবির বলেন, ‘আমরা কমিউনিটির সবাই এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো।’

কমিউনিটির প্রধান সামসুল হক বলেন, বাংলাদেশি আমেরিকান কমিউনিটির সবার জন্য এটি দুঃখের দিন। যুক্তরাষ্ট্র আমাদের সঙ্গে খুবই ভালো আচরণ করেছে। তাদের নিরাপত্তা রক্ষা আমাদের দায়িত্ব। সংগঠনটির সদস্যরা সব প্রবাসীদের অনুরোধ করেছেন যেন সন্দেহজনক কিছু চোখে পড়লে পুলিশকে খবর দেয় তারা।

নিউ ইয়র্কের মেয়র অফিসে চাকরিরত বাংলাদেশি সারা সাইদ বলেন, ‘এই হামলা কোনও জাতি বা ধর্মের বিষয় নয়। পুরো সম্প্রদায়কে দোষ দেওয়াকে আমরা সমর্থন করি না।’ কমিউনিটির নেতারা মঙ্গলবার বিকালে নিউইয়র্কে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে র‍্যালি করার ঘোষণা দেন। সব বাংলাদেশিদের র‍্যালিতে যোগ দেওয়ারও আহ্বান জানান তারা।

স্থানীয় সময় সোমবার সকালে বিস্ফোরণের ঘটনার পর দুপুরের দিকে ব্রুকলিনের ইস্ট সেকেন্ডের ১১০ নম্বর বাড়ি থেকে আকায়েদের ভাইকে নিয়ে গেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বিস্ফোরণে আকায়েদ সহ আরও কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েছেন। কাছেই থাকা তিনজন আহত হলেও তাদের অবস্থা এতটা গুরুতর নয়।

তদন্তকারী কর্মকর্তারা এখন আকাদের বাড়ি তল্লাসি করছে ও সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছে। হামলাটি আইসের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কিনা জানতে চাইলে নিউ ইয়র্কের পুলিশ কমিশনার জেমস ও নিল বিস্তারিত কিছু বলতে রাজি হননি। আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন কর্মকর্তা জানান, তারা প্রমাণ পেয়েছেন ইন্টারনেটে ইসলামিক স্টেটের ভিডিও দেখতেন আকায়েদ।

দুই মাস আগে ম্যানহাটনে ট্রাক হামলা চালিয়ে আটজনকে হত্যা করেছিলো এক উজবেক নাগরিক। সেই হামলার দায় স্বীকার করেছিলো আইএস।