পাওনা টাকা আদায়ে উত্তরার স্পোটিং ক্লাবে যুবক খুন

রাজধানীর উত্তরায় জুয়া খেলার পাওনা টাকা আদায়কে কেন্দ্র করে মো. সুমন (৪০) নামের এক যুবককে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ফেরদৌস ওরফে পেরু (৪০) ও জুয়েল (৩০) নামের দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে পেরু স্পোটিং ক্লাবের কার্ড কর্ণারের বয় ও জুয়েল ওই কার্ড কর্ণারের মালিক বিতানের গাড়ী চালক। উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ২/এ নং সড়কের ১ নম্বর বাসার স্পোটিং ক্লাবের ২য় তলায় শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সুমন ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট থানাধীন নাগলা নামক এলাকার ফয়েজ উদ্দিন আহম্মেদের ছেলে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক খেলোয়ার জানান, ক্লাবের বিতান ও সুমনের মধ্যে জুয়া খেলার টাকা নিয়ে দীর্ঘ দিন যাবত দন্দ্ব চলছিল। এরই জের ধরে শুক্রবার রাতে বিতানের নির্দেশে তার সহযোগী লাভলুর মাধ্যমে সুমনকে ধরে নিয়ে আসা হয়। পরবতীর্তে তাদের মধ্যে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে সুমনকে ছুরিকাঘাত করা হয়। পরবর্তীতে সকালে সে মারা যায়।

এদিকে স্পোটিং ক্লাবের হিসাব রক্ষক আমিনুল রাকিব জানান, ভোর রাতে ক্লাবের ২য় তলায় একটি ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পেরু ও জুয়েল নামের দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি আরো জানান, ক্লাবের ২য় তলায় কার্ড কর্ণার। যেখানে বিতানের নিয়ন্ত্রণে টাকার বিনিময়ে কার্ড (জুয়া) খেলা হয়। ঘটনার সময় বিতান, লাবলু, পেরু, জুয়েলসহ ৬/৭ জন ছিল। শনিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে লাবলু ক্লাব থেকে বের হয়। এর কিছুক্ষণ পর সুমনকে ধরাধরি করে পেরু ও জুয়েল বের করে নিয়ে যায়। কিন্তু বিতান কখন বের হয়েছে তা জানাতে পারেন নি তিনি।

হত্যার বিষয়ে বিমানবন্দর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) রুহুল আমিন সাগর জানান, সুমনকে ছুরিকাঘাত করে খুন করা হয়েছে। আর হত্যাকান্ডের নেপথ্যে জুয়া খেলা বলে ধারণা করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুই জনকে আটক করা হয়েছে। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া জানান, নিহত সুমনের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। নিহতের পিঠে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে জুয়ারী বিতানের সঙ্গে মুটোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি। এছাড়াও স্পোটিং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দিন পাপ্পুকে ক্লাবে পাওয়া যায় নি।

তানজীন মাহমুদ (তনু), নিজস্ব প্রতিনিধি